শুক্রবার | ২৩ এপ্রিল ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • নতুন ভ্যারিয়েন্ট কানাডাকে আবৃত করে ফেলতে যাচ্ছে : ট্রুডো
  • ভ্যাকসিনেশনের গতি বাড়াতে প্রয়োজন নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ : ডগ ফোর্ড
ফাইল ছবি

ব্যাংক অব কানাডা ও ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের সাবেক গভর্নর মার্ক কার্নির আত্মকথা ভ্যালু (জ): বিল্ডিং আ বেটার ওয়ার্ল্ড ফর অল’  সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে। বইটিতে মহামারি পরবর্তী টেকসই ও অধিক অন্তর্ভূক্তিমূলক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের বিষয়ে তার পরামর্শ উঠে এসেছে। এ পরামর্শ তিনি দিয়েছেন ২০০৮ সালে অর্থনৈতিক মন্দার সময় কানাডার মুদ্রানীতি ব্যবস্থাপনা ও ব্রেক্সিটের সময়কার অভিজ্ঞতার আলোকে। বইটি প্রকাশিত হওয়ার পর তার রাজনীতির মাঠে সক্রিয় হওয়ার বিষয়টি আবার আলোচনায় উঠে এসেছে।  মার্ক কার্নির রাজনীতিতে প্রবেশ নিয়ে আলোচনা ১০ বছর ধরেই চলছে। ২০১২ সালের নির্বাচনে লিবারেল পার্টি বড়সড় ধাক্কা খাওয়ার পর কার্নিকে নিয়ে চর্চাটা এতো বেশি হয়েছিল যে, বিবৃতি দিয়ে নিজের অবস্থান খোলাসা করতে হয়েছিল তাকে। সে সময় তিনি বলেছিলেন, কেন আমি সার্কাসের ভাড় হব না?

এর কিছুদিন পরই ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের গভর্নরের দায়িত্ব নিতে যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমান তিনি। কিন্তু গত গ্রীষ্মে কানাডায় ফেরার পর কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে তার আগ্রহ নিয়ে নতুন করে আলোচনা শুরু হয়।  গত আগস্টে বিল মরনো অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে আকস্মিক পদত্যাগের পর তার স্থলে মার্ক কার্নির নাম বেশ জোরেশোরেই শোনা গিয়েছিল। যদিও প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বিল মরনোর শূণ্যস্থান ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ডকে দিয়েই পূরণ করেন। অনেকে তাকে লিবারেল পার্টির পরবর্তী নেতৃত্বের দাবিদার বলেও মনে করেন। 

বিল মরনো রাজনীতি ছাড়ার পর তার সংসদীয় আসন টরন্টো সেন্টারের প্রার্থী হিসেবে মার্ক কার্নির নাম আরেকবার আলোচনায় আসে। কিন্তু তিনি সেদিকে যাননি এবং সেখানকার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন সাবেক টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব মার্সি লেন। এপ্রিলের ভার্চুয়াল সম্মেলনের তিনি কো-চেয়ার।

গত মাসে তার বইটি প্রকাশিত হওয়ার পর রাজনৈতিক উচ্চাকাক্সক্ষার বিষয়টি এড়িয়ে যান মার্ক কার্নি। জোর দিয়ে কার্নি বলেন, জাতিসংঘের জলবায়ু বিষয়ক বিশেষ দূত, অর্থনীতি ও ব্রুকফিল্ড অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট ইনকরপোরেশনের ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্বের প্রতিই এ মুহূর্তে তিনি বেশ মনোযোগ দিতে চান।