শুক্রবার | ২৩ এপ্রিল ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • নতুন ভ্যারিয়েন্ট কানাডাকে আবৃত করে ফেলতে যাচ্ছে : ট্রুডো
  • ভ্যাকসিনেশনের গতি বাড়াতে প্রয়োজন নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ : ডগ ফোর্ড
এবার কানাডায় অনুমোদন পেল জনসনের টিকা

: ৯ মার্চ ২০২১ | দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক |

ছবি টাইমস অব ইনডিয়া

যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার কানাডায় অনুমোদন পেল জনসন অ্যান্ড জনসনের এক ডোজের করোনার টিকা। এর মধ্য দিয়ে বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে সেখানে করোনার চারটি টিকার অনুমোদন দেওয়া হলো। এর আগে ফাইজার/বায়োএনটেক, মডার্না ও অক্সফোর্ড/অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রতিষেধক জরুরি ব্যবহারের জন্য সেখানে অনুমোদন পায়।

কানাডার স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান উপদেষ্টা ড. সুপ্রিয়া শর্মা জানান, টিকাদান কর্মসূচিতে গতি আনতে জনসনের টিকার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সমান সংখ্যক অন্য প্রতিষেধক দিয়ে যত মানুষকে টিকা দেওয়া যায়, তার দ্বিগুণ মানুষকে প্রতিষেধক দেওয়া সম্ভব জনসনের টিকায়। কারণ টিকাটির এক ডোজই একজন মানুষের জন্য যথেষ্ট।

বিশ্বের অনেক দেশের মতোই কানাডায় স্থানীয়ভাবে টিকা উৎপাদন হয় না। যুক্তরাষ্ট্রে উৎপাদিত টিকা প্রতিবেশী কানাডা, মেক্সিকোতে রপ্তানির অনুমোদন দেয়নি মার্কিন প্রশাসন। এ কারণে কানাডাকে টিকা সংগ্রহের জন্য ইউরোপ ও এশিয়ার দিকে নজর দিতে হয়েছে।

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেছেন, জনসনের কাছে এক কোটি ডোজ টিকা কেনার ক্রয়াদেশ আছে তাঁর সরকারের। এ ব্যাপারে গত সেপ্টেম্বরেই চুক্তি হয়েছে। এ ছাড়া আরো ২.৮ কোটি ডোজ টিকা সরবরাহে সম্মতি জানিয়েছে জনসন। অবশ্য কবে নাগাদ কানাডা জনসনের টিকার প্রথম চালান পাবে তা এখনো পরিষ্কার নয়।

ট্রুডো জানিয়েছেন, চলতি মাসের মধ্যে ফাইজারের কাছ থেকে অতিরিক্ত ১৫ লাখ ডোজ টিকা পাবে কানাডা। আরো ১০ লাখ ডোজ পাওয়া যাবে এপ্রিল ও মে নাগাদ।

কানাডার বর্তমান জনসংখ্যা চার কোটিরও কম। এর পরও সবার জন্য কম সময়ে টিকা নিশ্চিত করতে দেশটি সাতটি কম্পানির কাছে ৩৪ কোটিরও বেশি ডোজের ক্রয়াদেশ দিয়েছে। সূত্র : এপি, সিবিসি।