রবিবার | ৭ মার্চ ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • ৮ মার্চ টরন্টোর ওপর থেকে জনস্বাস্থ-সংক্রান্ত কিছু বিধিনিষেধ প্রত্যাহার হতে পারে
  • নকল এড়াতে ভ্যাকসিন সরবরাহ ব্যবস্থা সতর্কতার সঙ্গে দেখভাল করছে কানাডা
'কানাডায় প্রবেশকারীদের কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় দেওয়ার বিষয়টি উদ্বেগের'

: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক |

ছবি ভিক্টোরিয়া নিউজের সৌজন্যে

ট্রাকচালক ও পণ্য পরিবহনের সঙ্গে যুক্ত লোকজন, নিয়মিত যুক্তরাষ্ট্রে যেতে হয় এমন সীমান্ত কর্মী এবং যুক্তরাষ্ট্র বা অন্য দেশ থেকে সরাসরি আকাশপথে কানাডায় নিয়মিত প্রবেশ করছে। এসব প্রবেশকারীদের কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক হলেও অনেকেই তা মানছেন না। কোভিড-১৯ মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত কানাডায় প্রবেশকারীদের মধ্যে ৬৩ লাখ ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন পূর্ণ করেননি বলে কানাডার বর্ডার সার্ভিস এজেন্সির (সিবিএসএ) নতুন এক পরিসংখ্যানে এ তথ্য উঠে এসেছে।

টরন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি অধ্যাপক কলিন ফার্নেস এ প্রসঙ্গে বলেন, সীমান্ত খোলাই আছে এবং ট্রাকচালকদের দোষ দেওয়ার সুযোগ নেই। অত্যবাশকীয় কাজই তারা করছেন। তবে ধনী ও হাই-প্রোফাইল ভ্রমণকারীদের কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় দেওয়ার বিষয়টি উদ্বেগের।

সিবিএসএর পরিসংখ্যান বলছে, মার্চে কোয়ারেন্টিনের বিধান আরোপের পর থেকে ৮৬ লাখ মানুষ আকাশ ও স্থলপথে কানাডায় প্রবেশ করেছে। এদের ৭৪ শতাংশই ভ্রমণ-সংক্রান্ত বিধিবিধান পরিপালন থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন। অব্যাহতিপ্রাপ্ত ভ্রমণকারীদের অর্ধেকই ট্রাকচালক। এর বাইরে অন্যান্য অত্যাবশ্যক কাজে নিয়োজিত বিপুল সংখ্যক মানুষও এ থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন। ৩১ মার্চ থেকে স্থলপথে কানাডায় প্রবেশকারীদের ৯২ শতাংশকেই ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হয়নি। 

একইভাবে বাণিজ্যিক ফ্লাইটগুলোর মাধ্যমে ২০ লাখের মতো যাত্রী ও এয়ারলাইন ক্রু কানাডায় প্রবেশ করেছেন। এদের মধ্যে ১৩ লাখই এসেছেন যুক্তরাষ্ট্র থেকে। সিবিএসএর পরিসংখ্যান বলছে, ৩১ মার্চ থেকে আকাশপথে কানাডায় প্রবেশকারীদের ৯১ শতাংশের কোয়ারেন্টিনে থাকার প্রয়োজন ছিল।