বুধবার | ২৫ নভেম্বর ২০২০ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • ১০০ বছর আগে চুরি যাওয়া মূর্তি ভারতকে ফিরিয়ে দিচ্ছে কানাডা
  • কানাডার টরন্টো ও পিল অঞ্চলে লকডাউন ঘোষণা

কানাডার বিপর্যস্ত অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সরকার রেকর্ড ১৮৭ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করতে যাচ্ছে। এতে সাড়ে ৩৮ বিলিয়ন ডলার বাজেট ঘাটতিতে পড়তে হবে তাদের। প্রদেশের প্রোগ্রেসিভ কনজারভেটিভ সরকার বলছে, এই অর্থবছরে তারা হাসপাতালে অতিরিক্ত আড়াই বিলিয়ন ডলার ব্যয় করছে। বয়স্কদের যাতে আরও বেশি সময় বাড়িতে রাখা যায় সেজন্য আয় নির্বিশেষ তাদের জন্য ট্যাক্স ক্রেডিটের ব্যবস্থা থাকছে বাজেটে। বাবা-মার জন্য শিশুপ্রতি ২০০ ও ২৫০ ডলার প্রদানের যে কর্মসূচি তা আরও সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর বিদ্যুৎ বিলে বড় ধরনের ছাড়ের কথা ভাবছে অন্টারিও সরকার, ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে যা কার্যকর হবে। এর ফলে বিদ্যুৎ বিল বাবদ শিল্পখাতের গড়ে ১৪ ও বাণিজ্যিক খাতের ১৬ শতাংশ অর্থ সাশ্রয় হবে। এই কর্মসূচিতে আগামী বছর সরকারের ব্যয় হবে ১ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার। অর্থমন্ত্রী রড ফিলিপস একে দেখছেন অনিশ্চিত সময়ে নাগরিকদের যতটা সম্ভব নিশ্চয়তা দেওয়ার বাজেট হিসেবে।

আগামী বাজেটে বিয়ার ও ওয়াইনে বর্ধিত কর ২০২২ সাল পর্যন্ত স্থগিত রাখার পাশাপাশি রেস্তোরাঁগুলোতে টেকঅ্যাওয়ে পদ্ধতিতে স্থায়ীভাবে অ্যালকোহল বিক্রির অনুমতিও দেওয়া হচ্ছে। চলতি অর্থবছরের জন্য নির্ধারিত বর্ধিত করও স্থগিত করেছে সরকার। এসব কারণে ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রদেশের খরচ হবে ৪ মিলিয়ন ও পরবর্তী অর্থবছর ৪০ মিলিয়ন ডলার।

আগামী বছর স্টোরগুলোতে ক্যানাবিস বিক্রি থেকে রাজস্ব দ্বিগুন অর্থাৎ ১৭০ মিলিয়ন ডলার হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। অন্টারিওর নাগরিকদের আরও বেশি ব্যয়ে উৎসাহিত করতে তাদেরকে ২০ শতাংশ ঋণ দেওয়া হচ্ছে।

মহামারি ব্যবস্থাপনা নিয়ে প্রশ্ন থাকতেই পারে এমন মন্তব্য করে অর্থমন্ত্রী ফিলিপস বলেন, সরকারের বাইরে থেকে কেউ যদি ভালো উদ্দেশ্যে ভিন্ন ধরনের সিদ্ধান্ত দাবি করেন আমরা তাকে সম্মান জানাবো। কিন্তু দয়া করে আপনারা পার্থক্য বোঝার চেষ্টা করুন। সমালোচক যখন কোনো ভূল করে তখন তার পরিণাম হয় ছোট। কিন্তু যখন সরকার ভূল করে তখন তা জনগণের জীবনকে ঝুঁকিতে ফেলে দেয়।