চালের দাম কেন বাড়ছে?

২৩ আগস্ট ২০২০


চালের দাম কেন বাড়ছে?

চালের দাম তো বাড়ছেই৷ সেই সঙ্গে দর বেড়েছে প্রায় সব নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্য পণ্যেরও৷ এজন্য দায়ী করা হচেছ বন্যা আর সিন্ডিকেটকে৷ চালের বাজার বাড়ার পিছনে দায়ী করা হচ্ছে ধানের বাড়তি দামকেও৷ চালের দাম তো বাড়ছেই৷ সেই সঙ্গে দর বেড়েছে প্রায় সব নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্য পণ্যেরও৷ এজন্য দায়ী করা হচেছ বন্যা আর সিন্ডিকেটকে৷ চালের বাজার বাড়ার পিছনে দায়ী করা হচ্ছে ধানের বাড়তি দামকেও৷

করোনায় সাধারণ মানুষের জন্য আরেক দফা আপদ হয়ে এসেছে বাজারের বাড়তি দাম৷ কলাবাগানের বেসরকারি চাকরিজীবী শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘‘করোনার কারণে বেতনের ঠিক নাই৷ তার ওপর নিত্যপণ্যের দাম বাড়ায় এখন দিশেহারা অবস্থা৷ কিভাবে চলব বুঝতে পারছি না৷’’

বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা যায় খাবারের জন্য জরুরি যা যা দরকার তার প্রায় প্রত্যেকটিরই দাম বেড়েছে এক-দুই সপ্তাহের ভিতরে৷ বশির উদ্দিন রোডের মুদি দোকানদার মিন্টু মিয়া জানান, ‘‘সব ধরনের চালের দামই কেজিতে তিন থেকে পাঁচ টাকা বেড়েছে৷ ডিমের দাম হালিতে বেড়েছে চার টাকা৷ পেঁয়াজ, আলু, চিনি সব কিছুরই দাম বাড়তির দিকে৷ এর বাইরে তেল, দুধসহ আরো অনেক পণ্যের দাম ধীরে ধীরে বাড়ছে৷’’

উর্দ্ধমুখী মাছ, মাংসের দামও৷ এজন্য বিক্রেতারা দায়ী করছেন বন্যা আর বৃষ্টিকে৷ সবজিসহ কাঁচাবাজারেও এমন কোনো পণ্য নাই যার দাম বাড়েনি৷ বেগুন ৭০ টাকা, চিচিঙ্গা ৬০ টাকা, করলা ৭০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, ঢেঁড়শ ৫০ টাকা, বরবটি ৭০ টাকা, টমেটো ১২০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে৷ এই দর সাধারণ সময়ের চেয়ে গড়ে ১০-১২ টাকা বেশি বলে জানান বিক্রেতারা৷

টিসিবি’র তথ্য মতে নাজিরশাইল ও মিনিকেট চাল বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৫৫ টাকা থেকে ৬৪ টাকায়, যেখানে এক সপ্তাহ আগে বিক্রি হয়েছে ৫০ টাকা থেকে ৬২ টাকায়৷ আর গতবছর একই সময়ে প্রতি কেজির দাম ছিল ৪৭-৫৬ টাকা৷ একইভাবে মাঝারি মানের পাইজাম ও লতা চাল কেজিতে তিন থেকে পাঁচ টাকা বেড়েছে৷

আর মোটা চাল প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪৪-৪৮ টাকায়৷যা এক সপ্তাহ আগে ছিলো ৪০-৪৫ টাকা৷ কিন্তু টিসিবি'র এই হিসাবের সঙ্গে বাজারের দরের তফাৎ রয়েছে৷ মিন্টু মিয়া জানান, ‘‘এখন মিনিকেট চাল ৬৮ টাকা কেজি বিক্রি হয়৷ আর মাঝারি মানে বিরি ২৮ চাল বিক্রি হয় ৫১ টাকা কেজি৷’’

আড়ৎদাররা অবশ্য দাবি করছেন তারা চালের দাম বাড়াচ্ছেন না, মিল মালিকরা বাড়াচ্ছেন৷ তাদের আগের মজুত থাকায় এবং প্রতিযোগিতার কারণে তাদের পক্ষে দাম তেমন বাড়ানো সম্ভব হয় না৷ বাবুবাজার-বাদামতলী আড়ৎদার সমিতির সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘‘এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে খুচরা ব্যবসায়ীরা৷ তারা বন্যা এবং বৃষ্টির অজুহাতে দাম বাড়িয়ে দিয়েছে৷’’

কিন্তু মিল মালিকরা দাবি করেছেন, ধানের দাম বেশি হওয়ায় চালের দাম বাড়াতে তারা বাধ্য হয়েছেন৷

বাংলাদেশ অটো রাইস মিল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এবিএম খোরশেদ আলম বলেন, ‘‘মোটা ধানের মন আগে এই সময়ে ছিলো ৭০০ টাকা৷ আর এই বছর এক হাজার টাকার উপরে৷ মিনিকেট ও নাজিরশাইল ধান গত বছর এই সময়ে ছিলো ৯০০ টাকা৷ আর এ বছর এক হাজার ২০০ টাকা৷'' তিনি দাবি করেন, ‘‘এবার ধানের দাম বেশির পিছনে সিন্ডিকেট আছে৷ আর সরকার ধান উৎপাদনের যে হিসাব দিচ্ছে আমার মনে হয় তা ঠিক নয়৷ তাই সরবরাহ সংকট আছে৷’’

চালের বাজার নির্ভর করে সরকারের মজুত এবং আগামি দিনের সরবরাহ পরিস্থিতির ওপর৷ সরকারি হিসাবে ১০ লাখ টন চাল মজুত থাকার কথা বলা হলেও গত বছরের তুলনায় তা চার লাখ টন কম৷ আর সরকার যে দাম নির্ধারণ করছে তাতে ধান-চাল সংগ্রহ সফল হয়নি৷ সিপিডির অর্থনীতিবিদ ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, ‘‘দীর্ঘস্থায়ী বন্যার কারণে আগামী আমন ধানে একটা নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া পড়বে৷ ফলে সব মিলিয়ে চালের সরবরাহে এবার চ্যালেঞ্জ আছে৷ তাই যথা সময়ে চাল আমদানি না করলে পরিস্থিতি খারাপ হতে পারে৷’’

বাংলাদেশে এই সময়টাতে ভোগ্য ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য আমদানি নির্ভর অনেকটাই৷ আর বন্যার কারণে শাক সবজিসহ আরো অনেক নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের উৎপাদন ব্যাহত করেছে৷ করোনায় সরকারকে ত্রাণ ও অন্যান্য খাতে অনেক টাকা খরচ করতে হয়েছে৷ তাই এই অর্থনীতিবিদ মনে করেন, ‘‘বাজার মনিটরিং-এর সাথে বেসরকারি পর্যায়ে ভোগ্যপণ্য আমদানিতে উৎসাহ দেয়া প্রয়োজন৷’’ -ডয়েচেভেলে