টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ যুবক নিহত

২৯ জুলাই ২০১৯


টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ যুবক নিহত

কক্সবাজারের টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুইজন নিহত হয়েছে। সোমবার ভোর ৪টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিনড্রাইভ রোডের টেকনাফ বাহারছড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এসময় বেশ কিছু মাদক, একটি বিদেশি পিস্তল ও গুলি উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব। নিহতরা হলেন- টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের নাজিরপাড়া এলাকার বশির আহমদের ছেলে আব্দুর রহমান (৪২) ও রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের গোয়ালিয়াপালং এলাকার কবির আহমদের ছেলে উমর ফারুক (৩১)।

র‌্যাব-২ ঢাকার কোম্পানি কমান্ডার লে. মহিউদ্দিন ফারুকী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, সম্প্রতি রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকায় র‌্যাব সদস্যরা অভিযান চালিয়ে মাদকসহ বেশ কয়েকজন মাদক কারবারিকে আটক করে। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন মাদক কারবারি পলাতক ছিল। পরে আটকদের স্বীকারোক্তি মতে, সোমবার রাতে কক্সবাজারে অভিযান শুরু করেন র‌্যাব-২ সদস্যরা।

র‌্যাব কক্সবাজার টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের বাহারছড়া নামক এলাকায় দুইটি অস্থায়ী চেকপোস্ট বসায়। পরে টেকনাফ থেকে আসা একটি প্রাইভেটকারকে থামানোর সংকেত দিলে তা অমান্য করে পালিয়ে যায়।

এ সময় র‌্যাব সদস্যরা তাদের পিছু ধাওয়া করলে এক পর্যায়ে সড়কের ২০ কিলোমিটার মাইল স্টোনে ধাক্কা লেগে গাড়িটি থেকে যায়। কোন উপায়ন্তর না দেখে পাচারকারিরা র‌্যাব সদস্যকে লক্ষ্য করে গুলি করে। র‌্যাব সদস্যরা আত্মরক্ষার্থে গুলি চালায়। পরে মাদক পাচারকারিরা পিছু হটে পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে মাছের ককসিটের একটি কার্টুন থেকে ৩শ’ বোতল ফেনসিডিল, ৪ হাজার পিস ইয়াবা, একটি বিদেশি পিস্তল ও ৪ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ব্যবহৃত প্রাইভেটকারটি জব্দ করা হয়েছে।

র‌্যাব-১৫ টেকনাফ কার্যালয়ের সিনিয়র সহকারী পরিচালক লে. মীর্জা শাহেদ মাহতাব জানান, ঢাকা র‌্যাব-২ এর অভিযানের সময় দুইজনকে আহত অবস্থায় প্রথমে টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতাল ও পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

পরে তাদের পকেটে থাকা আইএনডি কার্ড দেখে নিহতদের পরিচয় শনাক্ত করা হয়। মৃতদেহগুলো ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে রয়েছে। এ  ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট আইনে টেকনাফ থানায় মামলা করা হয়েছে বলে জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।