মা হারা তুবার কান্না কাঁদিয়েছে সবাইকে

২৬ জুলাই ২০১৯


মা হারা তুবার কান্না কাঁদিয়েছে সবাইকে


ছোট শিশু তাসনিম তুবার দায়িত্ব রাষ্ট্রকে নিতে হবে। তাছাড়া তুবার মা তাসলিমা বেগম রেনুকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। শুক্রবার তাসলিমা বেগম রেনুকে পিটিয়ে হত্যার প্রতিবাদে মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদফতরের সামনে এলাকাবাসী ও নিহতের স্বজনরা এক মানববন্ধনে এ দাবি জানান।

এ সময় মা হারা তুবার কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছিল মানববন্ধনের পরিবেশ। তুবার অশ্রুসিক্ত দু'চোখ খোঁজে ফিরছিল তার মাকে। কিন্তু কোথাও দেখতে না পেয়ে সে অস্থির হয়ে উঠে। স্বজন-পরিজন কারও কথায় শান্ত হচ্ছিল না সে।

তুবার কান্নায় মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারী ও আশপাশের লোকজনের অনেকেই নিজেকে সামলে রাখতে পারেননি। অজান্তেই কেঁদে ফেলেন তারা।

মহাখালী ‘জ’ ব্লক সোসাইটির ব্যানারে এ মানববন্ধটি মহাখালী গাউসুল আজম মসজিদ থেকে ওয়্যারলেস গেট হয়ে স্কয়ার ভবনের সামনে পর্যন্ত ছড়িয়ে যায়।

মানববন্ধনে বলা হয়, রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় উত্তর-পূর্ব বাড্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বাচ্চা ভর্তি করানোর তথ্য সংগ্রহ করতে এসে দুর্বৃত্তদের গণপিটুনিতে মর্মান্তিকভাবে নিহত হন তাসলিমা বেগম রেনু।

ছেলেধরার গুজব ছড়িয়ে রেনুকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এলাকাবাসীর দাবি, রেনুকে যারা নির্মমভাবে হত্যা করেছে তাদের সবাইকে দ্রুত বিচার আইনের আওতায় আনতে হবে। উপযুক্ত শাস্তি দিলে ভবিষ্যতে এমনভাবে আর কাউকে নির্মমভাবে প্রাণ হারাতে হবে না।

মানববন্ধনে রেনুর বড় বোন নাজমুন নাহার নাজমা বলেন, এ হত্যা মামলার সুষ্ঠু তদন্ত এবং দৃষ্টান্তমূলক শান্তি এখন সময়ের দাবি। আসামিদের দ্রুত বিচারের আওতায় এনে বিচার না করলে রেনুর মতো আগামীতে অন্য কেউ এ রকম মর্মান্তিক হত্যার শিকার হতে পারে।