বাতাসে করোনা ছড়ানোর প্রমাণ মিলেছে: ডব্লিউএইচও

৮ জুলাই ২০২০


বাতাসে করোনা ছড়ানোর প্রমাণ মিলেছে: ডব্লিউএইচও

বাতাসে করোনা ছড়ায় এমন প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে বলে স্বীকার করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সোমবার ২৩৯ জন বিজ্ঞানীর এ দাবির পর সংস্থাটি এর প্রমাণ পাওয়ার কথা জানালো। এর মধ্যেই একদল ব্রিটিশ বিজ্ঞানি জানিয়েছেন করোনা মস্তিষ্কের ব্যাপক ক্ষতি করে। এ অবস্থার মধ্যেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার আনুষ্ঠানিকতা শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র। গত সোমবার ৩২ দেশের ২৩৯ জন বিজ্ঞানী চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছিলেন বাতাসে করোনাভাইরাস ছড়ায়। এ দাবির পর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা স্বীকার করেছে বাতাসে করোনা ছড়ায়। মঙ্গলবার জেনেভায় প্রেস ব্রিফিংয়ে ডব্লিউএইচও'র সংক্রমণ প্রতিরোধ প্রধান এ কথা বলেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার করোনা মহামারি টেকনিক্যাল প্রধান মারিয়া ভ্যান কারথোভ বলেন, জনসমাগমে অতিরিক্ত মানুষ, আলো বাতাস প্রবেশের ব্যবস্থা না থাকার মতো পরিবেশে বায়ুবাহিত সংক্রমণ হতে পারে। এখন প্রমাণ সংগ্রহ ও পর্যালোচনা চলছে।

তিনি বলেন, করোনা ভাইরাসের বায়ুবাহিত সংক্রমণের প্রমাণ হাজির হচ্ছে, তবে তা চূড়ান্ত নয়। জনসমাগমে অতিরিক্ত মানুষ, বদ্ধ, আলো-বাতাস প্রবেশের ব্যবস্থা না থাকার মতো পরিবেশে বায়ুবাহিত সংক্রমণ হতে পারে। এখন প্রমাণ সংগ্রহ ও পর্যালোচনা চলছে।

সংস্থাটির বিরুদ্ধে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কোভিড মোকাবিলায় ব্যর্থতার অভিযোগ এনে আরও আগেই বেরিয়ে যাওয়ার হুমকি দিয়েছিলেন। মঙ্গলবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে সে কাজ শুরু করেছে দেশটি। ২০২১ সালের ৬ জুলাইয়ের মধ্যে সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ হবে বলেও জানানো হয়েছে।

ট্রাম্পের এমন সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছেন মার্কিন নির্বাচনে ডেমোক্রেট দলীয় প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেন। তিনি বলেছেন, ক্ষমতায় আসতে পারলে তিনি আবারও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সদস্য করবেন যুক্তরাষ্ট্রকে।

ডব্লিউ এইচ ওর পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গবেষকরা করোনা নিয়ে তাদের গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এবার যুক্তরাজ্যের একদল গবেষক দাবি করেছেন, শুধু ফুসফুস নয় করোনা মস্তিষ্কেরও ব্যাপক ক্ষতি করে। এর মধ্যে মস্তিষ্কে প্রদাহসহ আরও বিভিন্ন মানসিক সমস্যা হতে পারে বলেও সতর্ক করেছেন তারা।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের পর খারাপ পরিস্থিতিতে থাকা ব্রাজিল হিমশিম খাচ্ছে করোনা মোকাবিলায়। দেশটির প্রেসিডেন্ট জেইরি বলসোনারোও আক্রান্ত হয়েছেন ভাইরাসটিতে। বৈশ্বিক এই মহামারিকে গুরুত্ব দেননি বলসোনারো। মাস্ক না পরেই ঘুরে বেড়িয়েছেন সব জায়গায়। সমাবেশ করেছেন সমর্থকদের নিয়ে।