শনিবার | ১৬ জানুয়ারী ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • কানাডার কুইবেকে লকডাউনে দম্পতির অদ্ভুত কান্ড
  • সব নাগরিকের ভ্যাকসিন নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর সরকার : জাস্টিন ট্রুডো
ফরিদপুরে নতুন করে ৮৮ জনের করোনা শনাক্ত

: ২৭ জুন ২০২০ | দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক বাংলাদেশ অফিস |

করোনাভাইরাস। ছবি: রয়টার্সফরিদপুরে পুলিশ, বিদ্যুৎ, পৌরসভার কর্মকর্তাসহ নতুন করে ৮৮ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। আজ শনিবার রাতে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থাপিত করোনা শনাক্তকরণ ল্যাবের পাঠানো রিপোর্টে এ তথ্য জানা গেছে। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা দাঁড়াল ১ হাজার ৭৫৪।

আজ শনিবার এ ল্যাবে মোট ৩৭৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ১১৬ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। করোনা নেগেটিভ (শনাক্ত হয়নি) হয়েছে ২৫৩ জনের। আর ইনভ্যালিড (অকার্যকর) হয়েছে ৭টি নমুনা। পরীক্ষাকৃত নমুনার মধ্যে পজিটিভ শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ৪৩ শতাংশ। এর মধ্যে ফরিদপুরে মোট ৮৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে একটি ফলোআপ (সংক্রমিত রোগীর পুনরায় পরীক্ষা) রোগী ছিল। ফলে নতুন করে শনাক্ত রোগী ৮৮ জন। এ ছাড়া গোপালগঞ্জের ২৬ জন ও মাদারীপুরের ১ জন করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন।

ফরিদপুরে নতুন শনাক্ত ৮৮ জনের মধ্যে সদরে রয়েছেন ৩৭ জন, নগরকান্দা উপজেলায় ১১ জন, বোয়ালমারী ও মধুখালীতে ৯ জন করে, ভাঙ্গা ও চরভদ্রাসনে ৮ জন করে এবং সালথা ও সদরপুর ৩ জন করে রয়েছেন। এর মধ্যে নারী ৩২ জন ও পুরুষ ৫৬ জন। নতুন শনাক্তদের বয়সভিত্তিক হিসাব১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে আছে ১৬ জন, ২১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে আছেন ৩৮ জন, ৪১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে আছেন ২৭ জন ও ৬১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে আছেন ৭ জন।

 

নতুন শনাক্তদের মধ্যে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের (বিআরডিবি) একজন কর্মকর্তা, পল্লী বিদ্যুতের তিন কর্মচারী, ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ওজোপাডিকো) এক কর্মচারী, একজন স্বাস্থ্যকর্মী, দুজন পুলিশ সদস্য ও পৌরসভার পাঁচ কর্মচারী রয়েছেন।

আজ শনিবার পর্যন্ত ফরিদপুরে মোট করোনা পজিটিভ শনাক্ত ১ হাজার ৭৫৪ জন। এর মধ্যে সদরে ৭০৫ জন রয়েছেন, ভাঙ্গায় ৩০৮ জন, বোয়ালমারীতে ২৪০ জন, সদরপুরে ১২৩ জন, নগরকান্দায় ১১৫ জন, চরভদ্রাসন ৯০, সালথায় ৬১ জন, আলফাডাঙ্গায় ৫৬ জন ও মধুখালীতে ৫৬ জন রয়েছেন।

ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান বলেন, নতুন শনাক্ত হওয়া রোগীর সঙ্গে পুলিশের পক্ষ থেকে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। ওষুধ ও খাদ্যসামগ্রীর প্রয়োজন হলে জানামাত্রই সংক্রমিতের বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছে পুলিশ। ফরিদপুরের সিভিল সার্জন মো. ছিদ্দীকুর রহমান বলেন, সব রোগীর সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে স্বাস্থ্যকর্মীরা। কারও সঙ্গে যদি যোগাযোগ করা সম্ভব না হয়, তবে সেটা হচ্ছে ঠিকানা সঠিক না থাকা বা মুঠোফোন নম্বর ভুল থাকার কারণে।