ডেটা কমিউনিকেশন সিস্টেমস ও নেটওয়াকিং(HSC)

৪ মে ২০২০


ডেটা কমিউনিকেশন সিস্টেমস ও নেটওয়াকিং(HSC)

প্রিয় ছাত্রছাত্রীবৃন্দ। কোভিড-১৯ এর দূর্যোগময় সময়ে তোমরা ঘরে বসে তোমাদের পড়ালেখা সঠিকভাবে করতে পার তার জন্য আমাদের দেশমাতা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার জননেত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তার ই অনুপ্রেরণায় তোমাদেরকে ঘরে প্রতিনিয়ত অধ্যায়নের সুযোগ তৈরি করার একটি চেষ্টা মাত্র।  

আমি-সৈয়দ মো: শরিফুল আজম(চেয়্যারমান-আপগ্রেড আইটি এন্ড নেটওয়ার্কিং ইনিস্টিটিউট এবং আইসিটি শিক্ষখ(খ) রাজবাড়ী সরকারী আদশ মহিলা কলেজ)

আজ তোমাদের অধ্যায়নের জন্য  তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সংক্ষিপ্ত গুরুত্ব  এবং  ডেটা কমিউনিকেশন সিস্টেমস ও নেটওয়ার্কিং (ভিডিও দেখার জন্য লিংক: https://www.youtube.com/watch?v=Xw_8Gvix2yo&t=1479s) এর অধ্যায় নিয়ে আলোচনা করব।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সংক্ষিপ্ত গুরুত্ব:

বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে আলোচিত ও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি Information is power অর্থাৎ তথ্যই শক্তি। আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সাথে অগ্রসর হওয়ার প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে নেই বাংলাদেশও। তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার যে জীবনযাত্রার মান বদলে দিতে পারে তা বিশ্বাস করতে এখন আর কেউ ভুল করছে না। তাই তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার বাংলাদেশে এখন অনেক বেড়েছে। স্কুল থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত কম্পিউটার শিক্ষা কার্যক্রম প্রবর্তন করা হয়েছে। প্রতিনিয়ত কম্পিউটারের ব্যবহার বাড়ছে। দেশে এখন কম্পিউটার হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার, ইন্টারনেট ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৯ থেকে ১০ হাজারের মতো। সারা দেশে কম্পিউটার হার্ডওয়্যারের শো-রুম রয়েছে সহস্রাধিক। ঢাকাতেই। গড়ে উঠেছে ৫ শতাধিক হার্ডওয়্যার প্রতিষ্ঠান। সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও শতাধিক। তথ্য প্রযুক্তির মহাসড়ক খ্যাত সাবমেরিন ক্যাবলের সাথে সংযুক্ত হওয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশ অন্তর্ভুক্ত হয়েছে আধুনিক বিশ্বের সকল উন্নত প্রযুুক্তির সাথে। আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির অবিস্মরণীয় বিপ্লবের ফলে পৃথিবীর মানচিত্র এক হয়ে গেছে। ভৌগোলিক সীমারেখা যেন আজ মুহুর্তে বিলীন হয়ে যাচ্ছে দ্রুতগতির ইন্টারনেটের পদতলে। যোগাযোগের এই উন্নত প্রযুক্তির ফলে সমগ্র বিশ্বের তথ্য ভান্ডার যেন এক সূত্রে গাঁথা হয়ে গেছে। আর তাই উন্নত বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশও এগিয়ে যাচ্ছে আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর উজ্জ্বল ভবিষ্যতের দিকে। সরকারি-বেসরকারি সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষার  ‍সুযোগ নিশ্চিত করা হচ্ছে।

এর ধারাবাহিকতায় প্রতিনিয়ত ছাত্রছাত্রীদের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির উন্নয়নের জন্য প্রতিনিয়ত থাকবে আমার অবিরাম চেষ্টা-

আজ তোমাদের অধ্যায়নের জন্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির এর কমিউনিকেশন সিস্টেমস ও নেটওয়ার্কিং এর অধ্যায় এর সাজেশনস

** ন্যারো ব্যান্ডে ডেটা স্থানান্তরের গতি কত?
উত্তরঃ- ন্যারো ব্যান্ডে ডেটা স্থানান্তরের গতি 450bps থেকে 300bps পর্যন্ত।
** BPS কী?
উত্তরঃ- প্রতি সেকেন্ডে যে পরিমান বিট ট্রান্সফার হয় তাকে bps দিয়ে bit per second বোঝান হয়।
** থিকনেট কি?
**- থিকনেট হলো ভারী ও নন ফ্লেক্সিবল মিডিয়া।
** ভিডিও কনফারেন্সিং এ কোন ধরনের ডেটা ট্রান্সমিশন করা হয়?
উত্তরঃ- মাল্টিকাস্ট মোড ব্যবহার করা হয়।
** টুইস্টেড পেয়ার ক্যাবলের ফ্রিকোয়েন্সি কত?
উত্তরঃ- টুইস্টেড পেয়ার ক্যাবলের ফ্রিকোয়েন্সি 0-5 MHZ

** STP কী?
উত্তরঃ- STP হলো Shielded Twiested Pair ।

** হটস্পট কী?
উত্তরঃ- পরস্পর সংযুক্ত ইন্টারনেট প্রবেশ বিন্দু বা এক্সেস পয়েন্টগুলোকে হটস্পট বলে।

** মডেম কোন গতিতে ডেটা পাঠায়?
উত্তরঃ- মডেম bit per second গতিতে ডেট পাঠায়।

** বেতার তরঙ্গ কত প্রকার?
উত্তরঃ- বেতার তরঙ্গ দুই প্রকার।
১৮. ব্লটুথ কর্তৃক প্রেরিত সিগন্যালের ক্ষমতা কত?
উত্তরঃ- ব্লুটুথ কর্তৃক প্রেরিত সিগন্যালের ক্ষমতা মিলিওয়াট।

** জ্যাকেট এর ব্যাস কত?
উত্তরঃ- জ্যাকেট এর ব্যাস 8০০ মাইক্রোমিটার।

** ইন্টারনেট কোন ধরনের টপোলজি?
উত্তরঃ- ইন্টারনেট হলো হাইব্রিড টপোলজি।

** কমিউনিকেশন সিস্টেমের উপাদান কী?
উত্তরঃ- কমিউনিকেশন সিস্টেমের উপাদানগুলো হলো কমিউনিকেশনের একটি পদ্ধতি যেমন-খেলাধুলা

সম্প্রচার, গণমাধ্যম, সাংবাদিকতা ইত্যাদি।

** কমিউনিকেশন সিস্টেমের মৌলিক উপাদান কয়টি ও কি কি?
উত্তরঃ- কমিউনিকেশন সিস্টেমের মৌলিক উপাদান পাঁচটি যথা-১.উৎস২.প্রেরক৩.মাধ্যম৪.গ্রাহক ব প্রাপক৫. গন্তব্য।
** মাধ্যম কাকে বলে?
উত্তরঃ- যার মাধ্যমে ডেটাসমূহ এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বা এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে স্থানান্তর করা হয় তাকে মাধ্যম বলে।
** প্রাপক কাকে বলে?
উত্তরঃ- যে যন্ত্র ডেটা গ্রহণ করে তাকে প্রাপক বলে।প্রাপক যন্ত্র হিসেবে মডেম ব্যবহার করা হয়।গ্রাহক কম্পিউটারের সাথে যুক্ত মডেম কম্পিউটারের অ্যানালগ সংকেতকে ডিজিটাল সংকেতে পরিণত করে।
**মডেম কিভাবে কাজ করে?
উত্তরঃ- মডেম কম্পিউটারের ডিজিটাল সংকেতকে অ্যানালগ সংকেতে পরিণত করে টেলিফোন যোগাযোগ ব্যবস্থা দ্বারা গ্রাহকের নিকট প্রেরণ করে।গ্রাহক কম্পিউটারের ব্যবহারপোযোগী করে। প্রেরক ও গ্রাহক উভয় প্রান্তে মডেম ব্যবহার করেন।
** কমিউনিকেশন সিস্টেম কী?
উত্তরঃ- কমিউনিকেশন সিস্টেম হলো একক সংগ্রহ যা কমিউনিকেশন নেটওয়ার্ক, ট্রান্সমিশন, রিলে স্টেশন, উপকেন্দ্র ও ডেটা টার্মিনাল যন্ত্রপাতির সাথে সংযুক্ত করে ডেটা আদান-প্রদান করা।
** ডেটা ট্রান্সমিশন স্পিড কী?
উত্তরঃ- এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে বা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে ডেটা স্থানান্তরের হারকে ডেটা ট্রান্সমিশন স্পীড বলে।
** ব্যান্ড উইডথ কাকে বলে?
উত্তরঃ- এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে বা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে ডেটা স্থানান্তরের হারকে ডেটা ট্রান্সমিশন স্পীড বলে।আর এ ট্রান্সমিশন স্পীডকে ব্যান্ড উইডথ বলে।