অর্থনীতির স্বাভাবিক অবস্থায় আর ফিরবে না বিশ্ব

৩১ মার্চ ২০২০


অর্থনীতির স্বাভাবিক অবস্থায় আর ফিরবে না বিশ্ব

এক নতুন অর্থনৈতিক পরিবেশের সঙ্গে পরিচিত হওয়ার অপেক্ষায় বিশ্ববাসী। যার সূচনা হতে পারে ২০২১ সালেই। এমন পূর্বাভাস দিয়েছে মার্কিন অর্থনৈতিক কনসালটেন্সি ফার্ম- ম্যাকেঞ্জি অ্যান্ড কোম্পানি। সম্প্রতি তাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, করোনাভাইরাস সংক্রমণের আগে যে পরিবেশকে অর্থনীতির জন্য স্বাভাবিক বলা হতো- সে স্বাভাবিক অবস্থায় আর ফিরবে না বিশ্ব

 কোভিড নাইনটিন মানুষের শুধু স্বাস্থ্যই নয়; স্বাধীনতা, গোপনীয়তা, সেবা পাওয়ার সুযোগ সবকিছুকেই নতুন করে ভাবাচ্ছে। আরও ভাবাচ্ছে কি হবে বিশ্ব অর্থনীতির? সামনে কি একটি মহামন্দা? মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী অর্থনৈতিক কনসালটেন্সি ফার্ম ম্যাকেঞ্জি অ্যান্ড কোম্পানি বলছে, করোনা বিশ্ববাসীর জীবন-জীবিকার ওপর যে ধাক্কা দিবে- তা গেলো শতাব্দীতেও দেখা যায়নি।

ম্যাকেঞ্জির পূর্বাভাস, স্বাভাবিকের সংজ্ঞাই হয়তো বদলে যাবে এ ধাক্কায়। বিশ্ববাসীকে অভ্যস্ত হতে হবে নতুন এক পরিস্থিতির সাথে। বিমান-পর্যটন, জ্বালানি, তৈরি পোশাকসহ কয়েকটি খাতে করোনার যে প্রভাব পড়বে- তা কাটিয়ে উঠতে সময় লাগবে আগামী বছরের প্রায় মাঝামাঝি পর্যন্ত।

 ম্যাকেঞ্জির বৈশ্বিক ব্যবস্থাপনা অংশীদার কেভিন স্নেডার বলেন, 'গ্রাহকদের জন্য খুবই দুসংবাদ অপেক্ষা করছে। একদিকে তারল্য অন্যদিকে কর্মী সংকটের মুখোমুখি হতে হবে আমাদের। নতুন কর্মসংস্থানেও বড় ধাক্কা লাগবে। স্বাস্থ্য কিংবা উৎপাদন সব খাতেই ব্যাপক পরিবর্তন দেখা যাবে। পৃথিবীর চিত্রই বদলে যাচ্ছে।'

ইউরোপ-অ্যামেরিকা এই মুহূর্তে করোনা নিয়ে নাকানি-চুবানি খাচ্ছে। ম্যাকেঞ্জি জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা যে নাড়া খাবে- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর তা আর দেখেনি দেশটি।

অবশ্য বিশ্ব অর্থনীতিতে ম্যাকেঞ্জির সুনাম- দুর্নাম দুইই আছে। ২০০৮ এর মন্দার পেছনে ম্যাকেঞ্জির প্রভাবের কথা অনেকই বলেন। কিন্তু তারপরও করোনা ইস্যুতে ম্যাকেঞ্জির পূর্বাভাস নিয়ে খুব একটা দ্বিমত নেই অর্থনৈতিক বিশ্লেষকদের।