সামান্ন কিছু টাকার জন্য একটা মানুষ খুন

২২ মার্চ ২০২০


সামান্ন কিছু টাকার জন্য একটা মানুষ খুন

গত ০৬/০৩/২০২০ ইং তারিখ রাত অনুমান ১০ টার দিকে কোতয়ালী থানাধীন ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের ফতেপুর শ্মশান ঘাট হতে ২০০ (দুই শত) গজ দূরে অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তির মৃত দেহ পাওয়া যায়। পরবর্তিতে জানা যায় যে, ঐ ব্যক্তির নাম ফারুক তালুকদার (৩৬) একজন পেশাগত ইজি বাইক চালক। ০৬/০৩/২০২০ তারিখ রাতে ০৮.০০ দিকে ফারুক কে ইজি বাইক চালিয়ে আলীপুর থেকে খানখানাপুরের দিকে যেতে দেখা যায়, ঐ সময় অজ্ঞাত নামা আনুমানিক ২/৩ জন যাত্রী তার ইজি বাইকে ছিল। মৃত দেহের গলার ডান পার্শ্বে ধারালো অস্ত্রের গভীর ক্ষত এবং তার সারা শরীর রক্তে ভেজা ছিল। আসামীরা ফারুকের ব্যবহৃত ইজি বাইক ও মোবাইল ফোন টি নিয়ে যায় এবং ঘটনাস্থলে ০১টি খেলনা পিস্তল ও ০৩টি স্যান্ডেল পাওয়া যায়। ঘটনাটি সারাদেশে আলোড়ন তৈরি করে। ঘটনার পর থেকেই কাজ শুরু করে কোতয়ালী থানা। পুলিশ সুপার মোঃ আলিমুজ্জামান, বিপিএম-সেবা এর নির্দেশে ঘটনার রহস্য উৎঘাটন এবং অজ্ঞাত নামা খুনি দের গ্রেফতারে কয়েকটি টিম কাজ শুরু করে। পুলিশ সুপারের নির্দেশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সদর সার্কেল মোঃ রাশেদুল ইসলাম, পিপিএম এর নেতৃত্বে কোতয়ালী থানার একটি টিম গত কাল রাতে অভিযান চালিয়ে ঘটনার সাথে জড়িত আনিছ মল্লিক (২৪), নামে একজন কে রাজবাড়ী সদরের ব্রাকপাড়া থেকে গ্রেফতার করে। তার দেওয়া তথ্য মতে কোতয়ালী থানার গঙ্গাবর্দি গ্রামের মোঃ সাইফুদ্দিন (৪০) (আনিছের ছোট দুলাভাই) এর বাড়ী থেকে লাল রং এর ইজি বাইক টি উদ্ধার করা হয় এবং সাইফুদ্দিনকে আটক করা হয়। ইজি বাইকের ব্যবহৃত পাঁচটি ব্যাটারি আনিছের বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়। ঘটনার ২/৩ দিন পর দেলোয়ার নামক অপর একজন ইজি বাইক চালক ঐ ব্যাটারি পাঁচটি গঙ্গাবর্দি থেকে আনিছের বাড়ি রাজবাড়ি নিয়ে যায়। পাঁচ টি ব্যাটারির উদ্ধারের সাথে দেলোয়ার কে এই ঘটনাই আটক করা হয়। আনিছের দেওয়া তথ্য মতে খুনির সাথে সরাসরি জড়িত মোঃ শহীদ মিয়া (২২) কে আজ দুপুর ০৩ (তিন) টার দিকে রাজবাড়ী সদর থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। আনিছের দেওয়া তথ্য মতে জানা যায়, আনিছ ও শহীদ ছাড়া আর ও ০২ (দুই) জন এই ঘটনার সাথে সরাসরি জড়িত ছিল। তারা ঐ দিন গোয়ালন্দ মোড়ের ফজর আলী মার্কেট থেকে একটি খেলনা পিস্তল ও একটি পেপার কাটার ১০০ (এক শত) টাকা দিয়ে ক্রয় করে। রাজবাড়ী সদর হাসপাতাল এর সামনে থেকে ফরিদপুর এর কোতয়ালী থানার ফতেপুর বেপারী পাড়া পর্যন্ত ফারুকের ইজি বাইক টি ৩৩০ (তিন শত ত্রিশ) টাকা ভাড়া ঠিক করে রাত আনুমানিক ০৮ (আট) ঘটিকার সময়। কোতয়ালী থানার ঈশান গোপালপুরের ফতেপুর শ্মশান এর কাছে পৌছালে প্রসাব করার কথা বলে আনিছ, পরবর্তীতে ০২ (দুই) জন পলাতক আসামী ফারুক কে লাথি মেরে ফেলে দেয়। সবাই মিলে ফারুক কে মাটির সাথে চেপে ধরে, পেপার কাটার দিয়ে শহীদ ফারুকের গলার ডান পাশে কেটে ফেলে। ফারুক কে তারা ঘটনাস্থলে রেখে ফারুকের ইজিবাইক ও ব্যবহৃত মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। ঘটনাস্থল ত্যাগের সময় তাড়াহুড়ার জন্য শহীদ এর একটা এবং অপর পলাতক আসামীর এক জোড়া স্যান্ডেল ফেলে রেখে যায়। শহীদ ঘটনা স্থলের পাশের বাশ বাগানে ঘটনাস্থলে ব্যবহৃত কাটার টি ফেলে দেয়। ঐ দিন রাতেই ইজি বাইক টি গঙ্গাবর্দি আনিছের দুলা ভাই এর বাড়ীতে রাখে। ইজি বাইক টির ব্যাটারি ২-৩ দিন পর আনিছ তার নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। আসামী আনিছ অদ্য আদালতে সোপর্দ করলে নিজের দোষ স্বীকার করে অন্য ০৩ আসামীদের নামসহ বিস্তারিত ঘটনার বর্ণনা দিয়ে ফৌ ঃ কাঃ ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছেন। ঘটনাস্থলে ব্যবহৃত কাটার টি উদ্ধারে অভিযান চলছে। অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। তদন্ত অব্যাহত আছে।