জুলাইয়ে মেসি চলে গেলে যাঁদের আনবে বার্সেলোনা

৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০


জুলাইয়ে মেসি চলে গেলে যাঁদের আনবে বার্সেলোনা

মেসির মন ভালো নেই। বার্সেলোনার সময়টা ভালো যাচ্ছে না। প্রিয় সাবেক সতীর্থ নেইমারকে আবারও বর্তমান সতীর্থ বানানোর চেষ্টা করেছিলেন মেসি, কিন্তু বার্সেলোনা সে ইচ্ছা পূরণ করতে পারেনি। কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দেকে বর্তমান থেকে সাবেক হতে দেখেছেন তাঁর আপত্তি সত্ত্বেও। এখন আবার সাবেক সতীর্থ ও বর্তমান ক্লাব কর্মকর্তা এরিক আবিদাল খেলোয়াড়দের নিয়ে নেতিবাচক কথা বলছেন। সব মিলিয়ে এই জুলাইয়েই বার্সেলোনা ছেড়ে দেওয়ার সম্ভাবনা আছে ক্লাবের সর্বকালের সেরা খেলোয়াড় লিওনেল মেসির, ইউরোপজুড়ে এমনই গুঞ্জন সংবাদমাধ্যমে।

মেসিকে ছাড়া পথচলার কথা এত দিন ভাবতেও পারেনি বার্সেলোনা। কিন্তু পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে নতুন করে চিন্তা করতে হচ্ছে কাতালানদের। মেসি চলে গেলে যেন একদম পথে বসতে না হয়, সে জন্য বিকল্পও বেছে নিয়েছে ক্লাব। পরিচিত দুই মুখই পছন্দ হয়েছে তাদের। চলতি মৌসুম শেষেই যদি মেসি ক্লাব ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন, তবে নেইমার ও লওতারো মার্তিনেজকে কিনে আনবে বার্সেলোনা। ইতালির পত্রিকা গাজেত্তা দেল্লা স্পোর্ত জানিয়েছে এ তথ্য।

নেইমারকে মেসির উত্তরসূরি বানাতেই কিনে এনেছিল বার্সেলোনা। কিন্তু সে পরিকল্পনায় জল ঢেলে দিয়ে ২০১৭ সালের আগস্টে নেইমার পিএসজিতে চলে গেছেন। এ মৌসুমের শুরুতে অবশ্য ফেরার চেষ্টা করেছিলেন। সে চেষ্টা বার্সেলোনার অপর্যাপ্ত আগ্রহ বা পিএসজির কড়া দর-কষাকষির প্রভাবে সফল হয়নি। এ নিয়ে ক্লাবের প্রতি নিজের অসন্তুষ্টি লুকাননি মেসি। এখন শোনা যাচ্ছে আবার ফর্মে ফেরা নেইমারকে আগামী মৌসুমে ঠিকই আনবে বার্সেলোনা। তবে মেসির হয়তো নেইমারের সঙ্গে আর খেলা হবে না।

লওতারো মার্তিনেজের ঘটনাটি ভিন্ন। স্ট্রাইকার হিসেবে এই আর্জেন্টাইনকে বেশ পছন্দ বার্সেলোনার। মেসিরও তাঁকে ভালোই পছন্দ। বয়স হয়ে যাওয়ায় লুইস সুয়ারেজের বিকল্প খুঁজছে বার্সেলোনা। সে জায়গাটি মার্তিনেজকে দিয়েই পূরণ করবে বার্সেলোনা। ইন্টার মিলানের এই স্ট্রাইকার এরই মধ্যে বার্সেলোনার বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগে নিজের দক্ষতা দেখিয়ে পরীক্ষায় পাশ করেছেন। ফলে মেসি যদি বার্সেলোনাকে বিদায় বলেন, তবে তাঁর শূন্যতা পূরণে নেইমার ও মার্তিনেজ দুজনকেই দরকার হবে বার্সেলোনার।

মেসির দল ছাড়ার গুঞ্জনটা উঠেছে এ সপ্তাহের ঘটনাতে। বার্সেলোনার ক্রীড়া পরিচালক এরিক আবিদাল কিছুদিন আগে এক সাক্ষাৎকারে খেলোয়াড়দের নিয়ে নেতিবাচক কথা বলেন। বার্সার সাবেক কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দের ওপর অনেক খেলোয়াড় খুশি ছিল না বলে জানিয়েছেন আবিদাল। ভালভার্দের অধীনে খেলোয়াড়েরা পরিশ্রমও করতেন না এমন অভিযোগও করেছেন। অন্য ভাষায় বললে, আবিদালের কথার অর্থ দাঁড়ায়, বার্সার কয়েকজন খেলোয়াড়ই ভালভার্দের বরখাস্ত হওয়ার জন্য দায়ী। কিন্তু বার্সেলোনায় কোচ আনা-নেওয়ায় মেসির হাত আছে বলে আগে থেকেই গুঞ্জন চাউর সংবাদমাধ্যমে, আবিদালের এ মন্তব্যও তাঁর দিকেই ইঙ্গিত করতে পারে হয়তো মনে হয়েছে মেসির। ইনস্টাগ্রামে তাই সরাসরি আবিদালের মন্তব্যের সমালোচনা করেছেন বার্সা অধিনায়ক। এরপর নানা সংবাদমাধ্যমে মেসির দল ছাড়ার সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা উঠেছে। ৭০০ মিলিয়ন ইউরো রিলিজ ক্লজ থাকলেও মেসির চুক্তিতে শর্ত আছে, চাইলে এই মৌসুমের শেষে বার্সেলোনা ছেড়ে যেতে পারবেন। এ জন্য কোনো টাকাও খরচ করতে হবে না তাঁকে কিনতে আগ্রহী ক্লাবকে। তবে সে জন্য মে মাসের আগে ক্লাবকে নিজের সিদ্ধান্ত জানাতে হবে মেসিকে।

গাজেত্তা দেল্লা স্পোর্তই বলছে, মেসিকে পাওয়ার সম্ভাবনায় জুভেন্টাস, ম্যানচেস্টার সিটি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, নেইমারের পিএসজি ও মার্তিনেজের ইন্টার মিলান এখনই চেষ্টা করার কথা ভাবছে। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে আপাতত আবিদালের সঙ্গে ঝামেলা মিটেছে মেসির। কিন্তু স্পোর্তের কথা সত্যি হলে ভবিষ্যতের কথাও ভেবে রাখছে বার্সেলোনা।