আমি তালাকপ্রাপ্ত একজন নারী.....আজমেরী হক বাঁধন

২ জানুয়ারী ২০২০


আমি তালাকপ্রাপ্ত একজন নারী.....আজমেরী হক বাঁধন

২০০৬ সালে লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতায় রানার আপ হন আজমেরী হক বাঁধন। এরপর একের পর এক বিজ্ঞাপন, নাটক, টেলিফিল্মে অভিনয় করে দর্শকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেন তিনি। সম্প্রতি ইন্টারনেট ও সব ধরনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কাউকে হেয়প্রতিপন্ন করা বা সাইবার বুলিংয়ের বিষয়ে মুখ খুলেছেন এ গুণী অভিনেত্রী। তিনি প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহার ও খারাপ দিক বর্জনের অনুরোধ করে ফেইসবুকে স্ট্যাস্টাস দিয়েছেন।

ওই স্ট্যাস্টাসে বাঁধন লিখেছেন, ‘আমি স্বতঃস্ফূর্ত, স্বতন্ত্র একজন নারী, একজন সিঙ্গেল মাদার, একটা সুন্দরী মেয়ের মা ও বাংলাদেশের একজন দায়িত্বশীল নাগরিক।

এবং হ্যাঁ ! আমি গর্ব করে বলতে পারি, আমি মিডিয়ার ও তালাকপ্রাপ্ত একজন মেয়ে। আমার জীবন ও শরীরেও ত্রুটি আছে।

আর্থিক, মানসিক ও শারীরিকভাবে স্বামী ছাড়া কীভাবে আমি আমার দিনগুলো কাটাচ্ছি তা আপনার উদ্বেগের বিষয় নয়! এটি একান্তই আমার জীবন এবং আমার উদ্বেগ। আপনাকে বিরক্ত না করে যদি আমি নিজেকে পরিচালনা করতে পারি তাহলে আপনি আমার পেশা, আমার জীবন ও আমার কাপড়-চোপড়ের বিচার করার চেষ্টা করবেন না।

তিনি আরো লিখেন, এমনকি আমাকে জিজ্ঞাসা করা বা আপনার অপ্রাসঙ্গিক মতামত প্রকাশের চেষ্টাও করবেন না, যা আমাকে বিরক্ত ছাড়া কিছুই করবে না। সময় এবং মস্তিষ্ককে নিজের জন্য বিনিয়োগ করুন, যা আপনাকে আপনার দেশের জন্য আরো ভালো মানুষ, উন্নত নাগরিক হতে সাহায্য করবে।’

বাঁধন লিখেন, ‘একটি সময় ছিল, যখন আমি এসব সামাজিক ও সাইবার বুলিংয়ের বিষয়ে খুব ভয় পেতাম। আমি এতটাই অসহনীয় আঘাত পেয়েছি, যা কথায় ব্যাখ্যা করতে পারবো না। যে কেউ যখন অস্বাভাবিক মন্তব্য করেন তখন সেই পরিস্থিতি গ্রহণ করা এতটা সহজ নয়, আমার জন্য সহজ ছিল না।

সুতরাং দয়া করে কারো পরিস্থিতি না জেনে তার সম্পর্কে কোনো রায় দেবেন না। আপনি যদি সহানুভূতি দেখাতে না পারেন তবে দয়া করে তাদের ক্ষতি করবেন না । আপনার কঠোর শব্দ, কঠোর ক্রিয়া এমনকি আপনার কঠোর চেহারা থেকে তাদের মুক্তি দিন। আমাকে কখনো বিচার করতে আসবেন না কারণ আপনি আমার পথে চলেননি।

সর্বশেষ কিন্তু সর্বনিম্ন নয়, সামাজিক এবং সাইবার বুলিং একটি কৌতুক নয় অপরাধ। সুতরাং সামাজিক ও সাইবার বর্বরতা বন্ধ করুন এবং নিজের সম্পর্কে সতর্ক থাকুন।’