পরকীয়া থেকে বেরিয়ে আসার ৫ উপায়

২৫ ডিসেম্বর ২০১৯


পরকীয়া থেকে বেরিয়ে আসার ৫ উপায়

চলার পথে জীবনে অনেক মানুষের সঙ্গে পরিচয় ঘটে। কখনো কখনো সেই পরিচয়টা গভীর সম্পর্কে মোড় নেয়। এতে করে তৃতীয় কেউ অজান্তেই আপনার দাম্পত্য জীবনে ঢুকে পড়ে। কখন, কেন, কীভাবে তার সঙ্গে নতুন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছেন, অনেক সময় তার ব্যাখ্যা আপনিও খুঁজে পান না। কিন্তু এমন সম্পর্ক শারীরিক ও মানসিকভাবে আনন্দ ও তৃপ্তি দিলেও একটা সময় তা হতে পারে আপনার মাথাব্যথার কারণ। কেননা একবার অন্য সম্পর্কে জড়িয়ে পড়লে তা থেকে মুক্ত হওয়া সহজ কাজ নয়।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, একবার পরকীয়ায় জড়ালে সেটা থেকে মুক্ত হওয়ার সব পথ দুর্গম হয়ে যায়। আর সম্পর্ক ফাঁস হয়ে গেলে তো ক্ষণিকের ভুল সিদ্ধান্ত সারা জীবন কাঁধে বয়ে বেড়াতে হয়। তাই সুখী দাম্পত্য চাইলে পরকীয়ার সম্পর্কে না জড়ানোই ভালো।

তারপরও যারা এমন পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছেন। অনেকেই আবার এ সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে সুখী দাম্পত্য জীবনে ফিরে যেতে চাইছেন। কিন্তু পারছেন না। এ ক্ষেত্রে সুখী দাম্পত্যে ফিরতে আপনাকে সাহায্য করবে পাঁচ টিপস-

কারণ বোঝার চেষ্টা করুন

পরকীয়ার সম্পর্কে কেন জড়িয়ে পড়েছিলেন আগে সেই কারণটা বোঝার চেষ্টা করুন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায়, দাম্পত্য জীবনে বিশেষ কোনো সমস্যা এবং বিবাদের জেরেই অন্য সম্পর্কে পা রাখেন কোনো নারী বা পুরুষ। সে ক্ষেত্রে দুজনে আলোচনার মাধ্যমে সেই বিশেষ সমস্যাটি মিটিয়ে ফেলার চেষ্টা করুন। এতে সুখী দাম্পত্য সহজেই ফিরে আসবে।

সঙ্গীকে পরকীয়ার বিষয়টি জানান

অনেকেই পরকীয়ার বিষয়টি সঙ্গীকে জানাতে চান না। তারা মনে করেন, এ ক্ষেত্রে বিবাদ আরও বাড়বে। এতে কিন্তু ভবিষ্যতে ভালোর চেয়ে খারাপই বেশি হয়। নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়া ভালো থাকলে স্থান-কাল-পাত্র বুঝে সঙ্গীকে গোটা বিষয়টি খুলে বলে দিতেই পারেন। কারণ অন্য কারও থেকে ব্যাপারটা জানলে তা আরও ভয়ংকর রূপ নিতে পারে।

পরকীয়ায় জড়ানো ব্যক্তির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করুন

একবার পরকীয়া থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললে সেই নারী বা পুরুষের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করে দেওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। তবে অবশ্যই সম্পর্কে ইতি টানার কথা তাকে সোজাসুজি জানিয়ে দিন। আবেগপ্রবণ হয়ে কোনোভাবে তার সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা না করাই ভালো। বরং সংসার ও কাজে মন দিন। কাজটি কঠিন হলেও শেষ পর্যন্ত কিন্তু আপনিই সফল হবেন।

ঠাণ্ডা মাথায় বিষয়টি সামলান

স্ত্রী অথবা স্বামীর মধ্যে যিনি পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন, তাকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়। অন্য সম্পর্কে জড়ানোর সমস্ত দায় তার ওপরেই চাপিয়ে দেওয়া হয়। এমনটা হলে কিন্তু পরকীয়ায় ইতি টানার উদ্দেশ্যই পূরণ হবে না। বরং কেন পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েছিলেন, সেই বিষয়টি নিয়েও আলোচনা প্রয়োজন। দুজনকেই ঠাণ্ডা মাথায় বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে বিষয়টি সামলাতে হবে।

বিশ্বাস রাখুন ও উপহার দিন

অনেক সময় দেখা যায়, পরকীয়া সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসার পরও সঙ্গীর প্রতি সেই বিশ্বাসটা আর ফেরে না। তাই উলটো দিকের মানুষটার মনে সারাক্ষণ সন্দেহ থেকে যায়। তাই নতুন করে তার বিশ্বাস অর্জন করা জরুরি। স্ত্রী বা স্বামীকে নানা ধরনের সারপ্রাইজ দিয়ে, ভালোবাসায় ভরিয়ে সেই ভাঙা মনকে জোড়া দেওয়ার কাজটিও করতে হবে অত্যন্ত নিপুণ হাতে। এতে করেই সুখী দাম্পত্য আবারও ফিরে আসবে।