স্ত্রীর কবরে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন স্যার আবেদ

২২ ডিসেম্বর ২০১৯


স্ত্রীর কবরে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন স্যার আবেদ

বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদ। আর্মি স্টেডিয়ামে জানাজা শেষে তাকে নেওয়া হয় বনানী কবরস্থানে। বনানী কবরস্থানের এ ব্লকের ১৫ রোডে স্ত্রী আয়শা হাসান আবেদের কবরেই চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়ে তাকে। শেষ বিদায় দিতে কবরের পাশে জড়ো হন স্বজন ও দীর্ঘদিনের সহকর্মীরা। উপস্থিত ছিলেন মরহুমের ছেলে ও মেয়ে। এ সময় পরিবারের সদস্য, ব্রাক কর্মী এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সর্বস্তরের অসংখ্য মানুষ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে রোববার (২২ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় সর্বসাধারণের শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য আর্মি স্টেডিয়ামে তাঁর মরদেহ আনা হয়। বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধা জানায় তাদের এ প্রিয়জনকে। পরে সাড়ে পৌনে ১টার দিকে অনুষ্ঠিত হয় নামাজে জানাজা। নামাজে জানাজায় বিভিন্ন পেশাজীবী ও বিভিন্ন বয়সের কয়েক হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

জানাজার আগে স্যার ফজলে হাসানের ছেলে শামেরান আবেদ সবাইকে উপস্থিত হওয়ার জন্য সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি তার বাবার রূহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং কোনো পাওনা থাকলে তার সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করেন। জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে মরদেহ দাফন করা হয়।

সকাল ৯টা থেকেই আর্মি স্টেডিয়ামে আসতে শুরু করেন সাধারণ মানুষ, বিশিষ্টজন ও তার দীর্ঘদিনের সহকর্মীরা। বিভিন্ন উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা এবং বাহিনীর পক্ষ থেকে তাঁকে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। আর্মি স্টেডিয়ামে মরহুমকে শ্রদ্ধা জানাতে ব্র্যাক, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়, ব্র্যাক ব্যাংকের কর্মকর্তাদের আলাদা প্যান্ডেল তৈরি করা হয়। এর আগে শুক্রবার রাত ৮টা ২৮ মিনিটে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে মারা যান স্যার ফজলে হাসান আবেদ। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। তিনি স্ত্রী, এক মেয়ে, এক ছেলে, তিন নাতি-নাতনিসহ বিশ্বজুড়ে কোটি কোটি শুভানুধ্যায়ী রেখে গেছেন।