'তালিকার ভুল জানতে কবর থেকে তুলতে হতো'

১৭ ডিসেম্বর ২০১৯


'তালিকার ভুল জানতে কবর থেকে তুলতে হতো'

ব্যাপক বিতর্কের মুখে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক রাজাকারের তালিকার পক্ষে অবস্থান নিয়ে ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ‘‘এই তালিকা প্রকাশ শাপে বর  হয়েছে৷’’

মন্ত্রী বলেন,  ‘‘এখন যারা রাজাকার ছিলেন না তারা তা সংশোধনের সুযোগ পাবেন৷ ১০০ বছর পর প্রকাশ হলে সেই সুযোগ তারা পেতেন না৷''

১৫ ডিসেম্বর পূর্ব ঘোষণা অনুাযায়ী ‘রাজাকরের তালিকা' প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়৷ ১০ হাজার ৭৮৯ জনের এই তালিকায় সরকারের গেজেটে প্রকাশিত মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধ সংগঠকদের নামও রয়েছে৷ এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়লেও এই তালিকা প্রকাশের পক্ষে ডয়চে ভেলের কাছে নিজের ব্যাখ্যা তুলে ধরেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক৷

তিনি বলেন,‘‘আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে পাওয়া তালিকা প্রকাশ করেছি৷ এর দাড়ি, কমা, সেমিকোলন কিছুই পরিবর্তন করিনি৷ ১৯৭১ সালে পাকিস্তানিদের করা এই তালিকা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সংরক্ষিত ছিলো৷ এই তালিকা সঠিক কিনা তা জানতে হলে যারা এটা করে গেছেন তাদেরকে আমাকে কবর থেকে তুলতে হতো৷''

যাচাই-বাছাই ছাড়াই তালিকাটি প্রকাশ ঠিক ছিল বলে মনে করেন মন্ত্রী৷ তার মতে এটি প্রকাশ করা ঐতিহাসিক কারণে জরুরি ছিলো৷ তিনি বলেন, ‘‘এই তালিকা তো একদিন না একদিন প্রকাশ হতো৷ আরো ৩০ বছর পর যদি প্রকাশ হতো, ১০০ বছর পর প্রকাশ হলে তা যারা এখন বলছেন তারা সংশোধনের সুযোগ পেতেন না৷ এখন তো আমরা সংশোধনের সুযোগ দিচ্ছি৷ তারা বলতে পারছেন, আমরা রাজাকার ছিলাম না৷ এই তালিকা প্রকাশ তাই শাপে বর হয়েছে৷ তারা এখন সংশোধনের সুযোগ পাচ্ছেন৷''

তালিকাটি প্রকাশের পর নিজের মুক্তিযোদ্ধা বাবার নাম এসেছে বলে জানান বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) বরিশাল জেলার সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী৷ ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, ‘‘আমার বাবা এডভোকেট তপন কুমার চক্রবর্তী একজন গেজেটেড মুক্তিযোদ্ধা, ক্রমিক নং-১১২ পৃষ্ঠা-৪১১৩৷ তিনি নিয়মিত মুক্তিযোদ্ধা ভাতাও পেয়ে থাকেন! আজ রাজাকারের তালিকায় তিনি ৬৩ নাম্বার রাজাকার৷''

তিনি আরো লিখেছেন, ‘‘আমার ঠাকুরদা এডভোকেট সুধির কুমার চক্রবর্ত্তীকে পাকিস্তানি মিলিটারি বাহিনী বাসা থেকে ধরে নিয়ে গিয়ে হত্যা করে৷ তিনিও ভাতাপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃত৷ তার সহধর্মিণী আমার ঠাকুমা উষা রানী চক্রবর্ত্তীকে রাজাকারের তালিকায় ৪৫ নম্বরে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে৷''

প্রকাশিত ওই তালিকায় রাজশাহীর মুক্তিযুদ্ধের পাঁচ সংগঠকের নাম রয়েছে৷ এসেছে বগুড়ার মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, মুক্তিযোদ্ধা এবং আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্যসহ একডজনের বেশী শীর্ষ নেতাদের নামও৷

এই মুক্তিযোদ্ধাদেরকে রাজাকারের তালিকায় রাখার মাধ্যমে তাদের প্রতি অসম্মান করা হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘‘যারা খ্যাতিমান ব্যক্তি তাদের আমরা চিনি৷ কিন্তু যাদের চিনি না তাদেরটা কিভাবে যাচাই করব? আমি এজন্য দুঃখ প্রকাশ করছি৷ আমিতো আগেই বলেছি এই তালিকা আমরা করিনি৷ আমাদের যাচাই বাছাইয়ের প্রশ্ন কেন?''

তালিকায় নিজের নাম থাকলে তিনি যতটা দুঃখ ও কষ্ট পেতেন মুক্তিযোদ্ধা হয়েও যাদের নাম রাজাকারের তালিকায় উঠেছে তারাও ততোটাই দুঃখ পেয়েছেন বলে মনে করেন মন্ত্রী৷ তারপরও এর দায় নিতে নারাজ তিনি৷ যে তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে সেখানে অনেকের নামের পাশে লেখা আছে অপরাধ প্রমাণিত হয়নি৷ তাহলে তাদের নাম প্রকাশের যুক্তি কী? জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘‘এর চেয়ে আর কী ভালো লেখা থাকবে বলেন৷ তাদের বিরুদ্ধে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি, এটাতো ভালো৷ তারা বলতে পারবেন আমরা নির্দোষ৷''

মন্ত্রী জানান, এটি প্রথম তালিকা৷ ধাপে ধাপে আরো তালিকা প্রকাশ করা হবে৷ জেলা প্রশাসকদের চিঠি দেয়া হলেও তারা তালিকা পাঠাননি৷ আক্ষেপ করে তিনি বলেন,‘‘জাতি যেখানে রাজাকারদের তালিকা চায় সেখানে জেলা প্রশাসকদের এই অবস্থা!''

এদিকে রাজাকারের তালিকার ভুল নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় একটি বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে৷ সেখানে বলা হয়েছে, কেউ আবেদন করলে যাচাই করে সেই নাম বাদ দেয়া হবে৷ এ নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘‘যারা আপত্তি করবেন তথ্য প্রমাণ দেখে তাদেরটা সংশোধন করা হবে৷ এটা আমরা নিজেরাও করব, কিন্তু সময় লাগবে৷ তবে ব্যক্তি নিজে আবেদন করলে তাড়াতাড়ি হবে৷''

কোনো বিচারের জন্য এই তালিকা নয় জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘‘ইতিহাসের প্রয়োজনে এই তালিকা প্রকাশ করা হচ্ছে৷ আর যারা হত্যা করেছে, ধর্ষণ করেছে তাদের বিচারতো চলছেই৷ আমরা জাতিকে ইতিহাসের ঘটনা অবহিত করছি৷''

রাজাকারদের তালিকায় যারা আছেন তাদের রাজনৈতিক পরিচয় প্রকাশ করা হবে না বলে জানান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের এই মন্ত্রী৷ তিনি বলেন, ‘‘যে অপরাধ করেছে সে তো দলীয় পরিচয়ে করেনি৷ আর তখনতো অনেক দল সৃষ্টি হয়নি৷ তখনতো বিএনপি ছিলো না, জাতীয় পার্টি ছিলো না৷'' -ডয়েচেভেলে