সুপ্রিম কোর্টের আদেশে বিএনপিসহ জাতি স্তম্ভিত : মির্জা ফখরুল

১২ ডিসেম্বর ২০১৯


সুপ্রিম কোর্টের আদেশে বিএনপিসহ জাতি স্তম্ভিত : মির্জা ফখরুল

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন বাতিল করায় বিএনপিসহ জাতি স্তম্ভিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ বৃহস্পতিবার রাতে দলের স্থায়ী কমিটি বৈঠকের পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এক সংবাদ সম্মেলনে এই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘যে রায় হয়েছে সেই রায়ে আমরা হতাশ এবং ক্ষুব্ধ। জাতি পুরোপুরিভাবে স্তম্ভিত শুধু নয়,ক্ষুব্ধ।  যে প্রত্যাশা মানুষের মধ্যে ছিলো-অন্তত সর্বোচ্চ বিচারালয় ব্যবস্থায় যা আমাদের শেষ আশা-ভরসারস্থল, যেখান থেকে মানুষ এবং তাদের প্রিয় নেতা ন্যায় বিচার পাবেন। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে তিনি সেই ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।’

স্কাইপে দলের ভারপ্রাপ্ত তারেক রহমানের সভাপতিত্বে বৈঠকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, ড. আবদুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন। এর আগে দলের ভাইস চেয়ারম্যান সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদিন খালেদা জিয়ার মামলায় আপিল বিভাগের রায়ের বিস্তারিত স্থায়ী কমিটির সদস্যদের কাছে তুলে ধরেন।

বৈঠকে আগামী রোববার সারাদেশে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা স্থায়ী কমিটির  বৈঠকে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, রোববার দিন সারাদেশে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত হবে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে। ঢাকা মহানগরে প্রতি থানায় থানায় বেলা দুইটার পর থেকে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এই হচ্ছে আপাতত আগামী রোববারের জন্য কর্মসূচি। পরের কর্মসূচি ঘোষণা করব।’

ফখরুল বলেন, ‘আমরা মনে করি, জনগণের অংশগ্রহনের মধ্য দিয়ে জনগণের সক্রিয় আন্দোলনের মধ্য দিয়ে আমরা এই যে সরকার যারা আজকে জোর করে ক্ষমতা দখল করে বসে আছে তাদেরকে বাধ্য করব। এই নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় নতুন নির্বাচন দিয়ে জনগনের সরকার গঠনে আমরা বাধ্য করব।’

তিনি বলেন,‘ সেই সময়ে জনগনের সামনে আমরা অন্তত এটুকু নিয়ে আসতে পারবো যে একটা গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা, গণতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার সেই স্বপ্ন যেন জনগণ দেখতে পারেন।’