নাগরিকত্ব বিল নিয়ে উত্তাল আসাম

১২ ডিসেম্বর ২০১৯


নাগরিকত্ব বিল নিয়ে উত্তাল আসাম

ভারতের পার্লামেন্টে পাস হওয়া নাগরিকত্ব বিলের (সিএবি) প্রতিবাদে আসামের রাজধানী গুয়াহাটিতে কারফিউ অমান্য করে রাস্তায় নেমেছে হাজারো জনতা।  বৃহস্পতিবার সকালে গুয়াহাটিতে লোকজন কারফিউ ভেঙে রাস্তায় নেমে আসে। আসামের ছাত্র সংগঠন এএএসইউ ও কেএমএসএস লোকজনকে রাস্তায় নেমে আসার আহ্বান জানায়। গুয়াহাটির শহরতলীর কোনো কোনো এলাকায় পুলিশ গুলিবর্ষণ করেছে। খবর এনডিটিভি ও আনন্দবাজার পত্রিকা’র।

বিক্ষোভ থামাতে আশ্বাস দিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা। টুইট করেছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীও। তাতেও নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (সিএবি) নিয়ে আসামের বিক্ষোভ থামেনি।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, গুয়াহাটির লালুঙ গাঁও-তে এ দিন বিক্ষোভ সামাল দিতে গিয়ে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে পুলিশ। উত্তেজিত জনতাকে থামাতে গিয়ে গুলি চালাতে বাধ্য হয় পুলিশ। এতে চার জন আহত হলে তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

অন্যদিকে ছাবুয়ায় এক বিজেপি বিধায়কের (সংসদ সদস্য) বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগও উঠেছে বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে। এ দিন সকাল হতেই সেখানে রাস্তায় নেমে আসেন সাধারণ মানুষ। জ্বলন্ত কাঠ ফেলে জায়গায় জায়গায় পথ অবরোধ করেন তাঁরা। সেই সঙ্গে চলতে থাকে সরকারবিরোধী স্লোগান। তার মধ্য়েই ছাবুয়ায় বিজেপি বিধায়ক বিনোদ হাজারিকার বাড়িতে আগুন ধরিয়ে এক দল বিক্ষোভকারী। তবে তাতে কেউ হতাহত হননি বলে জানিয়েছে দেশটির সংবাদ সংস্থা পিটিআই। বিজেপি নেতাদের। দফতরের বাইরে বেশ কয়েকটি গাড়িও জ্বালিয়ে দেওয়া হয় বলে দাবি তাঁদের।

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে গতকালই বিক্ষোভে নেমেছিল আসাম। সাধারণ মানুষ এবং শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে এসেছিলেন।

আসামজুড়ে ব্যাপক প্রতিবাদের মুখে বৃহস্পতিবার সকালে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে আসামের জনগণকে আশ্বস্ত করে টুইট করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি টুইটে বলেন, ‘আপনাদের অধিকার কেউ কেড়ে নিতে পারবে না।’

বুধবার রাতে ডিব্রুগড়ের চাবুয়ায় প্রতিবাদকারীরা একটি রেলস্টেশনে আগুল লাগিয়ে দেয়। তিনসুকিয়া জেলার পানিতোলা রেলস্টেশনও প্রতিবাদকারীরা পুড়িয়ে দিয়েছে বলে নর্থইস্টান ফ্রন্টিয়ার রেলওয়ের মুখপাত্র জানিয়েছেন।

ইন্ডিগো বৃহস্পতিবার তাদের ডিব্রুগড়গামী ও সেখান থেকে ছেড়ে আসার কথা থাকা সব ফ্লাইট বাতিল করেছে। স্পাইসজেটও গুয়াহাটি ও ডিব্রুগড়গামী ও সেখানে থেকে ছেড়ে আসার কথা থাকা তাদের সব ফ্লাইট শুক্রবার পর্যন্ত বাতিল করেছে। ভারতের অভ্যন্তরীণ রুটে চলাচলকারী অন্যান্য এয়ারলাইন্সগুলো একই ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর ২টা থেকে পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টার জন্য পুরো আসামজুড়ে ইন্টারনেট সার্ভিস বন্ধ রাখা হয়েছে।