র‌্যাগিংয়ের দায়ে বুয়েটের ৯ শিক্ষার্থী আজীবন বহিষ্কার

২৮ নভেম্বর ২০১৯


র‌্যাগিংয়ের দায়ে বুয়েটের ৯ শিক্ষার্থী আজীবন বহিষ্কার

র‌্যাগিংয়ে জড়িত থাকায় দায়ে হল থেকে আজীবন বহিষ্কার করা হলো বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) নয় শিক্ষার্থীকে। বুয়েট প্রশাসন একইসঙ্গে এই নয়জনকে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম থেকেও বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকাল বুয়েটের উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানানো হয়। বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিদফতরের পরিচালক ও বোর্ড অব রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিন কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক মিজানুর রহমান এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, বিভিন্ন সময়ে র‌্যাগিংয়ে জড়িত থাকার দায়ে আরও ২১ শিক্ষার্থীকে হল থেকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করা হয়েছে। র‌্যাগিংয়ের বন্ধে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে বুয়েটের বোর্ড অব রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিন কমিটি এ শাস্তির সিদ্ধান্ত নেয়।

বিভিন্ন মেয়াদে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম এবং হল থেকে আজীবন বহিষ্কার হওয়া নয় শিক্ষার্থী হলেন- সব্যসাচী দাস দিব্য, সৌমিত্র লাহিড়ী, প্লাবন চৌধুরী, নাহিদ আহমেদ, অর্ণব চৌধুরী, মো. ফরহাদ হোসেন, মো. মোবাশ্বের হোসেন শান্ত, এএসএম মাহাদী হাসান, আকিব হাসান রাফিন।

র‌্যাগিংয়ের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীরা যে তিনটি দাবিতে আন্দোলন করছে প্রশাসন তার মধ্যে দুটি বাস্তবায়ন করেছে। শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো হলো- আবরার হত্যা মামলার অভিযোগপত্রের ভিত্তিতে অভিযুক্তদের স্থায়ী বহিষ্কার, বুয়েটের আহসান উল্লাহ, তিতুমীর ও সোহরাওয়ার্দী হলে ঘটে যাওয়া নির্যাতনের বিষয়ে অভিযুক্তদের অপরাধ অনুযায়ী শাস্তি প্রদান ও সাংগঠনিক ছাত্র রাজনীতি ও নির্যাতনের বিষয়ে শাস্তির আইন প্রণয়ন এবং বাস্তবায়ন।

এদিকে বুধবার উপাচার্যের সঙ্গে এক বৈঠক শেষে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের একজন জানান, ডিসেম্বরের ২৮ তারিখ থেকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবেন তারা। তবে, পরীক্ষা শুরু হওয়ার এক সপ্তাহ আগে তৃতীয় দাবিটি বাস্তবায়ন না হলে পরীক্ষায় অংশ নেবেন না তারা।

এ বিষয়ে বুয়েট প্রশাসন জানায়, তৃতীয় দাবিটির বিষয়ে কাজ চলমান রয়েছে। আগামী সপ্তাহের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানানো হবে। এছাড়া তিতুমীর হলে র‌্যাগিংয়ে জড়িত আরও কিছু নতুন শিক্ষার্থীর নাম তদন্ত কমিটির কাছে এসেছে। তাই আরও তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে আগামী সোমবার ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানা গেছে।