বর্তমান সরকার বৈধ নয় : কাদের সিদ্দিকী

২৬ নভেম্বর ২০১৯


বর্তমান সরকার বৈধ নয় : কাদের সিদ্দিকী

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বঙ্গবীর আব্দুল কদের সিদ্দিকী বলেছেন, বর্তমান সরকার বৈধ নয়। এটা নিজেরাও তা স্বীকার করে। একটি সরকার আছে গণতন্ত্রের সরকার, অন্যটি হচ্ছে জবরদস্তি করে ক্ষমতায় থাকার সরকার। তা অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই। তবে জবরদস্তি করে থাকলে কখন পতন আসে তা বলা যায় না। দেশে কোন ন্যায়নীতি নেই। দেশের মানুষ কি ভাবছে সরকার তা বুঝতে পারছে না। এটা বড়ই দুর্ভাগ্য।  মঙ্গলবার দুপুরে টাঙ্গাইল প্রেসকাবের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমরা দেশের সংকটে সরকারের সমালোচনা করতে গিয়ে কখনও কখনও দেশেরও বিরোধিতা করি। বিরোধী দল সরকারের সমালোচনা করবে, সরকার বিরোধী দলের বিরুদ্ধে কথা বলবে। কিন্তু দেশের মানুষ কি ভাবছে সরকার ও বিরোধী দল তার পরোয়া করে না। গণতন্ত্রে সরকারের অনুমতি নিয়ে মিছিল মিটিং করার কোন প্রয়োজন নেই। সরকারকে অবহিত করতে হয়। সরকার শুধু পাহাড়া দিবে। পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমুল্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়া নিয়ে তিনি বলেন, দেশ যেভাবে চলার কথা সেভাবে চলছে না। প্রধানমন্ত্রী মারাত্বক চাপের মুখে আছেন। চারপাশে যাদেরকে তিনি বসিয়েছেন তারা কেউ উপযুক্ত নয়। যোগ্যতা সম্পন্ন লোকদের দিয়ে কাজ না করালে একটি প্রতিষ্ঠানে ও একটি দেশে যে দুর্বলতা দেখা দেয় দেশে এখন তাই হচ্ছে।

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসারত মুক্তিযোদ্ধার সাটিফিকেট চিকিৎসক কর্তৃক ছিড়ে ফেলার পাঁচ দিনেও ডাক্তারের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় কাদের সিদ্দিকী হতাশা প্রকাশ করেন। ওই ডাক্তারকে সাসপেন্ড বা জেলে ভরে তদন্ত করা যেতো। তার ডাক্তারি সনদটি বাতিল করা যেতো। সরকারি দলের সমর্থিত ওই ডাক্তার নেতাকে যদি শাস্তি দেয়া না হয় আমার বোন (শেখ হাসিনা) ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলেও মন্তব্য করেছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর আব্দুল কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তালুকদার খোকা বীরপ্রতিক, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ টাঙ্গাইল জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম, সাবেক সভাপতি আব্দুল হাই, জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হিটলু প্রমুখ।