জাবিতে আন্দোলনকারী ও উপাচার্যপন্থীদের মুখোমুখি অবস্থান

৪ নভেম্বর ২০১৯


জাবিতে আন্দোলনকারী ও উপাচার্যপন্থীদের মুখোমুখি অবস্থান

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামকে অপসারণের দাবিতে তার বাসভবনে অবরুদ্ধ করেছে আন্দোলনকারী শিক্ষক শিক্ষার্থীরা। অপরদিকে আন্দোলনকারীদের ঘিরে চার স্তর বিশিষ্ট বহর তৈরি করেছে উপাচার্যপন্থী শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

এছাড়া যেকোন ধরনের সহিংসতা এড়াতে প্রায় ত্রিশজন পুলিশ সদস্য উপাচার্যের বাসভবনের সামনে সার্বক্ষণিক নিয়োজিত আছেন বলে নিশ্চিত করেন আশুলিয়া থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) মো. আতিক। এর আগে সোমবার (৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় উপাচার্য অপসারণ মঞ্চ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বাসভবন ঘেরাও করেন আন্দোলনকারীরা। এসময় শতাধিক আন্দোলনকারী শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বাসভবনের সামনে অবস্থান নেন।  এ ব্যাপারে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর আন্দোলনের মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, 'আমরা উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়েছি। তিনি অপসারিত না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এই অবস্থান চলবে।'

তিনি আরো বলেন, 'ইতিপূর্বে কোন আন্দোলনে আমরা আজকের মত কোন অবস্থান দেখিনি। আমরা লক্ষ্য করেছি দুর্নীতিবাজ উপাচার্য শুধু শিক্ষকদের ব্যবহার করছেন সেটাই নয় নিজের স্বার্থে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদেরকেও ব্যবহার করছেন। আর এর মাধ্যমে শিক্ষক কর্মকর্তা ও কর্মচারীদেরকে মুখোমুখি দাড় করিয়েছেন। এর আগে যখন আমরা ঘোষণা দিয়েছি যে যেকোন সময় আমরা উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করতে পারি। তখন থেকেই উপাচার্য তার বাসভবনে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের খাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন বলে জানতে পেরেছি। এর একটাই কারণ সেটা হলো আন্দোলনকারী শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মুখোমুখি তাদেরকে দাড় করানো।'

অন্যদিকে উপাচার্যপন্থী শিক্ষক অধ্যাপক বশির আহমেদ বলেন, ‘সংকট সমাধানের জন্য মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী আন্দোলনকারীদেরকে ডেকেছিলেন। মন্ত্রীর ডাকে সাড়া দিয়ে তারা আলোচনায় বসেছেন, আমরা এটাকে স্বাগত জানিয়েছি। আমরা যতটুকু শুনেছি মন্ত্রী সবার সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছেন এবং আন্দোলনকারীদের কর্মসূচী প্রত্যাহারের আহবান জানিয়েছেন। কিন্তু তারা তাতে সাড়া না দিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। আন্দোলনের জন্য মঞ্চ বানানোর পর তারা এখন উপাচার্যের বাসভবন অবরোধ করেছেন। এটা একটা সাংঘর্ষিক আচরণ।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল-হাসান সাংবাদিকদের বলেন,'আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ে শান্তিপূর্ণ অবস্থান দেখতে চাই। সেই জায়গা থেকে আমরা বলবো আন্দোলনকারীরা যেন তাদের অবস্থান থেকে সরে আসেন।' 

এদিকে টানা ১০ম দিনের মতো প্রশাসনিক ভবন অবরোধ ও অষ্টম দিনের মতো সর্বাত্মক ধর্মঘট শেষে উপাচার্যকে তার বাসভবনে অবরুদ্ধ করেন আন্দোলনকারীরা।