গ্রেফতারই হয়নি শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসান, এখন লন্ডনে

১৩ অক্টোবর ২০১৯


গ্রেফতারই হয়নি শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসান, এখন লন্ডনে

দুবাইয়ে গ্রেপ্তার বাংলাদেশের শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসান আহমেদ মন্টি জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। এমন একটি সংবাদ প্রকাশ পেয়েছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে। কিন্তু নতুন খবর হচ্ছে- তিনি গ্রেফতার হননি এবং এ মূহুর্তে অবস্থান করছেন লন্ডনে। সেখানে জিসান তার স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে আনন্দেই রয়েছেন। বর্তমানে জার্মানি যাওয়ার চেষ্টা করছেন এ সন্ত্রাসী। ইতিমধ্যে জার্মানিতে স্থায়ী বসবাসের সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে বলে জানা গেছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সর্বশেষ তিনি লন্ডন আসেন চলতি মাসের ১০ তারিখে। দুবাই ছাড়েন গত মাসে। এরপর ইউরোপের বিভিন্ন দেশ ঘুরে লন্ডনে ঢোকেন। গত মাসের শেষ সপ্তাহে আবারও তিনি লন্ডন থেকে চিলি যান। সেখান থেকে গত ১০ অক্টোবর আবার লন্ডনে ফিরে আসেন। জিসান আহমেদ এখন রয়েছেন লন্ডনে। তবে তার জার্মানি স্থায়ী বসবাসের সব প্রক্রিয়াই প্রায় সম্পন্ন।

প্রসঙ্গত, ২০০৩ সালে মালিবাগের সানরাইজ হোটেলে ডিবির দুই ইন্সপেক্টরকে সরাসরি হত্যা করে আলোচনায় আসেন জিসান। এর পরে দীর্ঘ সময় আত্মগোপনে থেকে ২০০৫ সালে জিসান ভারতে চলে যান। সেখানে ২০০৯ সালে কলকাতা পুলিশের হাতে আটক হন। সেখান থেকে ছাড়া পাওয়ার পরে কলকাতায় বসেই নিয়ন্ত্রণ করতেন ঢাকার চাঁদাবাজি। জিসান ভারতীয় পাসপোর্ট নিয়ে দুবাই যান বছর দুয়েক আগে। আর এর পরে সেখান থেকেই ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন। সেখান থেকে ভারতের পাসপোর্ট ব্যবহার করে জার্মানিতে স্থায়ী বসবাসের সুযোগ পান বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশে পুলিশের পক্ষ থেকে সম্প্রতি জানানো হয়েছিল তালিকাভুক্ত পলাতক শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসান আহমেদকে আরব আমিরাতের দুবাই শহর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গত ৩ অক্টোবর একটি প্রেস নোট দিয়ে পুলিশ সদর দফতর থেকে শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানকে গ্রেফতার হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে।

এ তথ্য নিশ্চিত করে পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (ন্যাশনাল সেন্ট্রাল ব্যুরো) মহিউল ইসলাম বলেছিলেন, ইন্টারপোলের মাধ্যমে জিসানকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে দুবাই কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশকে জানিয়েছে।

ওই সময় গ্রেফতার বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছিলেন, জিসানকে দেশে ফেরত আনার বিষয়ে প্রক্রিয়া শুরু করা হবে।

নতুন করে বিষয়ে আলোচনায় আসার পর বাংলাদেশ পুলিশের মুখপাত্র এআইজি (মিডিয়া) মো. সোহেল রানা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘দুবাই পুলিশের বরাত দিয়ে আমাদের এনসিবি (ন্যাশনাল সেন্ট্রাল ব্যুরো) জিসানের গ্রেফতার হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছিল। আমরা এখনও আমাদের আগের বক্তব্যেই স্থির রয়েছি।’

এদিকে জিসানের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র গণমাধ্যমকে জানায়, যে সময়ে জিসান গ্রেফতার হয়েছে বলে পুলিশ দাবি করেছে, সেই সময়ে জিসান লন্ডনেই অবস্থান করছিলেন। তবে আকবর নামে একজন ভারতীয় আটক হওয়ার খবর পাওয়া যায় দুবাইয়ে। তিন বছর আগে জিসান নিজের নাম পাল্টে আকবর নামে ভারতীয় পাসপোর্টে দুবাই আসেন। সেই পাসপোর্ট তিনি ফেলে দেন। কিন্তু বাংলাদেশ পুলিশের কাছে খবর রয়েছে আকবর নামে জিসান দুবাইয়ে অবস্থান করছেন। দুবাই পুলিশের কাছেও এমন খবর ছিল। কিন্তু আকবর নামে যে ভারতীয় গ্রেফতার হয়, তার নামে দুবাই পুলিশ কোনো অভিযোগ খুঁজে পায়নি। অথচ বাংলাদেশ পুলিশ সেই অর্ধেক তথ্য নিয়েই প্রচার করে জিসান গ্রেফতার।

পরে এ নিয়ে পুলিশ সদর দফতর গোলকধাঁধায় পড়ে। আকবর নামে এক ভারতীয় গ্রেফতারের পর এই গোলকধাঁধার সৃষ্টি হয়। উল্লেখ্য, বহুল আলোচিত শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের নামে মালিবাগ, মগবাজার, খিলগাঁও এলাকায় একাধিক হত্যা ও চাঁদাবাজির মামলা রয়েছে।

সাম্প্রতিক দুর্নীতি বিরোধী অভিযানে দুই যুবলীগ নেতা জিকে শামীম ও খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে আটকের পর জিসানের নাম নতুন করে আলোচনায় আসে। কারণ জিসানের সঙ্গে এদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে বলে জানা গেছে।