ফারাক্কা বাঁধের ১১৯টি গেট খুলে দিয়েছে ভারত, বাংলাদেশে বন্যার আশঙ্কা

১ অক্টোবর ২০১৯


ফারাক্কা বাঁধের ১১৯টি গেট খুলে দিয়েছে ভারত, বাংলাদেশে বন্যার আশঙ্কা

ভারতের উত্তর প্রদেশ ও বিহারে রেকর্ড পরিমাণ বৃষ্টির কারণে ব্যাপক প্লাবনের সৃষ্টি হওয়ায় ফারাক্কা বাঁধের ১১৯টি লকগেট খুলে দেয়া হয়েছে। ফলে বাংলাদেশে বন্যার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। গতরাতেই  রাজশাহীর জেলা প্রশাসককে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, বন্যা পরিস্থিতির অবনতি দেখা দিলে প্রয়োজন পদ্মার চরাঞ্চলের লোকজন সরিয়ে মূল ভূখণ্ডে নিয়ে আসার জন্য। তাছাড়া, স্থানীয় উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদেরকে সমন্বয়ের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি রাখতে বলা হয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে দ্রুত বাড়তি বরাদ্দ দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। 

সরকারেরর পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ ফারাক্কা বাঁধের গেটগুলো খুলে দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানিয়েছে, ফারাক্কা বাধের ১১৯টি গেট খুলে দেয়ার এরইমধ্যে পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ ও মালদহের কয়েকশ’ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। নদীরবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে বিস্তীর্ণ এলাকা। 

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)-এর  বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানিয়েছে, সেপ্টেম্বর মাসের দ্বিতীয় ও তৃতীয় সপ্তাহে গঙ্গা অববাহিকার উজানে ভারতীয় অংশে মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে গঙ্গা নদীর ভাটিতে অর্থাৎ বাংলাদেশ অংশে পানির সমতল বৃদ্ধি পেতে থাকে। গত মাসের মাঝামাঝি বৃষ্টিপাত কিছুটা কমলেও চতুর্থ সপ্তাহ থেকে ভারতের বিহার প্রদেশে অতিভারী বর্ষণসহ অনেক স্থানে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। এ বর্ষণ আজ (মঙ্গলবার) শুরু হওয়া অক্টোবর মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।

উজানে অতি বর্ষণের প্রভাবে গঙ্গা নদী বাংলাদেশের রাজশাহী ও হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে এবং গড়াই রেলওয়ে ব্রিজ এবং কামারখালী পয়েন্টে গতকাল বিপদসীমায় পৌঁছে যায়। চলতি সপ্তাহেই তা বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে। এরফলে চলতি সপ্তাহে গঙ্গা নদীর সংলগ্ন দেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, নাটোর, পাবনা, কুষ্টিয়া, রাজবাড়ী ও মাগুরা জেলার কতিপয় স্থানে মাঝারি মাত্রার স্বল্প থেকে মধ্যমেয়াদি বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

গঙ্গা নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে পদ্মা নদী গোয়ালন্দ ও ভাগ্যকুল পয়েন্টে এবং পদ্মা সংলগ্ন যমুনার আরিচা পয়েন্টে বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে। এরফলে অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে পদ্মা নদী সংলগ্ন দেশের মধ্যাঞ্চলের মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী ও শরীয়তপুর জেলাসমূহের নিম্নাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদি বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

ইতোমধ্যে পদ্মা পাড়ের বির্স্তীর্ণ এলাকায় ও গড়াই তীরের অনেক স্থানে পানি বৃদ্ধি পেয়ে অনেক গ্রাম-জনপদ আকস্মিক বন্যায় প্লাবিত হয়েছে।