‘ভিডিও দেখে বোমা বানানো শিখে পুলিশের ওপর হামলা’

২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯


‘ভিডিও দেখে বোমা বানানো শিখে পুলিশের ওপর হামলা’

সম্প্রতি ঢাকায় পাঁচটি হামলার সঙ্গে জড়িত ছিলো নব্য জেএমবির পাঁচজন সদস্য। এদের দু’জন গতকাল নারায়ণগঞ্জে গ্রেফতার রুমি ও মিজান। হামলায় ব্যবহৃত বোমাগুলো তারাই তৈরি করেছে। এই ঘটনায় জড়িত তিনজনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। মঙ্গলবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান কাউন্টার টেরোরিজম প্রধান মনিরুল ইসলাম।

এপ্রিল থেকে শুরু করে সব শেষ ৩১ আগস্ট। রাজধানীর পাঁচটি স্থানে পুলিশকে লক্ষ্য করে হামলা চালায় নব্য জেএমবির সদস্যরা। কাউন্টার টেরোরিজম বলছে সবগুলো হামলার সঙ্গে পাঁচজনের একটি গ্রুপ। যাদের অন্যতম রুমী রফিক ওরফে মিজান। এরাই নারায়ণগঞ্জের আস্তানায় বোমাগুলো তৈরি করে। এক্ষেত্রে নিজেদের ইঞ্জিনিয়ারিং জ্ঞান ও অনলাইন বোমা বানানোর ভিডিও দেখে দক্ষতা অর্জন করে তারা।

পুলিশের মনোবল ভেঙে দেয়া, প্রচার পাওয়া এবং নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিতেই এসব হামলা বলছে কাউন্টার টেরোরিজম প্রধান মনিরুল ইসলাম।

উচ্চ শিক্ষিত তরুণ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা কিভাবে, কেন জড়ালো জঙ্গিবাদে। প্রশ্ন ছিল কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট প্রধান মনিরুল ইসলামের কাছে।

তিনি বলেন, 'বিপুল সংখ্যক শিক্ষিত যুবকরা জিহাদিস্ট ওয়বেসাইটগুলো ভিজিট করছে। যাদের দেশের প্রতি, দেশের জনগণের প্রতি কোনো মায়ামহব্বত নেই। এরাই সটকাট রাস্তায় এক ধরনের কাপুরুষায়ন মানসিকতা থেকে উগবাদের সাথে জড়িত হয়।

এছাড়া চলমান ক্যাসিনো বিরোধী অভিযানে যাদের সম্পৃক্ততা পাওয়া যাবে সব ধরনের প্রভাবের উর্ধ্বে উঠে তাদের গ্রেফতার করা হবে বলেও জানান তিনি।