মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

১ সেপ্টেম্বর ২০১৯


মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দিয়েছে পুলিশ। রোববার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজীর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির।

বিকেলে বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন এক প্রেসবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এ চার্জশিটে মিন্নিকে সাত নাম্বার আসামি হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। অন্যদিকে, রিফাত হত্যা মামলার প্রধান আসামি নয়ন বন্ড গত ২ জুলাই বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হওয়ার পর পুলিশ নিরবিচ্ছিন্নভাবে গভীর তদন্ত শেষে ২৪ জনের বিরুদ্ধে পেনাল কোডের ৩০২/৩৪/২১২/১০৯/১১৪/১২০-বি (১) ধারায় বরগুনা সদর থানার অভিযোগপত্র ২৮০(১) বিজ্ঞ আদালতে দাখিল করা হয়েছে। তবে চার্জশিটে উল্লেখিত আসামিদের ব্যাপারে কোনও তথ্য দিতে রাজী হয়নি পুলিশ।

জানা গেছে, রিফাত হত্যা মামলায় আদালতে চার্জশিট জমা দেয়ার দিন ছিল গত ২২ আগস্ট। কিন্তু সেদিন মামলার প্রতিবেদন প্রস্তুত করতে না পারায় আদালতে চার্জশিট জমা দেয়া হয়নি। পরে আগামী ৩ সেপ্টেম্বর এ মামলার চার্জশিট দাখিলের দিন ধার্য করেন আদালত। কিন্তু এরই মধ্যে তড়িঘড়ি করে আজ ১ সেপ্টেম্বর আদালতে চার্জশিট জমা দেয় পুলিশ।

এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবিরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি চার্জশিটের ব্যাপারে বলেন, আয়শা সিদ্দিকা মিন্নীকে সাত নাম্বারে রাখা হয়েছে। কিন্তু এ বিষয়ে পুলিশ সুপারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এদিকে, গত ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে যখম করে আসামিরা। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় বরিশাল সদর হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যান রিফাত। যার ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হলে দেশে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়।

এ ঘটনায় ২৭ জুন রিফাতের বাবা আবদুল হালিম শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। তাতে প্রধান সাক্ষী করা হয় রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে।

কিন্তু মিন্নির শ্বশুর মামলার ১৮ দিন পর গত ১৩ জুলাই এই হত্যাকাণ্ডে মিন্নি জড়িত এমন দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করার পর মামলাটির তদন্ত নাটকীয় মোড় নেয়। পরে এ মামলায় গ্রেফতার করা হয় মিন্নিকে। এ মামলায় এখন পর্যন্ত গ্রেফতার হওয়া সবাই আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

রিফাত হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত ১৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারা হলেন- রিফাত ফরাজী, রিশান ফরাজী, চন্দন সরকার, রাব্বি আকন, হাসান, অলি, টিকটক হৃদয়, সাগর, কামরুল ইসলাম সাইমুন, আরিয়ান শ্রাবণ, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, তানভীর, নাজমুল হাসান, রাতুল সিকদার ও আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি।

তবে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি মুসা বন্ড, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রায়হান ও রিফাত হাওলাদারকে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এ মামলার প্রধান আসামি নয়ন বন্ড গত ২ জুলাই পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।

এর আগে গত ২৯ আগস্ট হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ দুই শর্তে মিন্নির জামিন মঞ্জুর করেন। আগামীকাল ২ সেপ্টেম্বর মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে তার।

এদিকে, বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিনের বিরুদ্ধে আপিল করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। রোববার হাইকোর্টের দেওয়া জামিনসংক্রান্ত রায় প্রকাশিত হওয়ার পর অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড হিসেবে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী সুফিয়া খাতুন এ আপিল দায়ের করেন।