বুধবার | ২ ডিসেম্বর ২০২০ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • কানাডায় একদিনে করোনা সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন ৬৬ জন
  • ভারতের কৃষক বিক্ষোভ নিয়ে জাস্টিন ট্রুডোর উদ্বেগ
যেকোনো সময় নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে : অলি

: ২৪ আগস্ট ২০১৯ | দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম |

এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ সরকারের ‘পতন অনিবার্য’ মন্তব্য করে নিজের নেতৃত্বাধীন দল লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টিকে (এলডিপি) নির্বাচনের জন্য প্রস্ততি নিতে নির্দেশ দিয়েছেন ।  শনিবার বিকেলে এক অনুষ্ঠানে নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে এ নির্দেশনা প্রদান করেন জাতীয় মুক্তিমঞ্চের এই আহ্বায়ক।

অলি বলেন, ‘আপনাদের বলছি, নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে হবে, যেকোনো সময় নির্বাচনের জন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। নিজের কর্মকাণ্ডের কারণেই এই সরকারের পতন হবে, পতন যখন হবে; নতুন সরকার গঠিত হবে। নতুন সরকারের মাধ্যমেই নির্বাচন হবে।’

একই প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন,‘এলডিপির যারা সদস্যরা আছেন তাদেরকে আমি সভাপতি হিসেবে নির্দেশ দিচ্ছি- আপনার প্রস্তুতি নিন, নির্বাচনী এলাকা প্রস্তুত করুন। দেশবাসীকেও বলব আপনারাও প্রস্তুত হোন। কারণ, সময় বেশি হাতে থাকবে না।’

এলডিপির সভাপতি বলেন, ‘দলের পক্ষ থেকে আমরা প্রার্থী তালিকা প্রস্তুত করার কাজ হাতে নিয়েছি। আমাদের সব পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। আপনারা যারা আজকে যোগদান করেছেন তাদের মধ্যে যারা প্রার্থী হতে আগ্রহী তাদেরকে অনুরোধ করবো- আপনাদেরকে নির্বাচনের জন্য সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। এভাবে একটা দেশ চলতে পারে না।’

জাতীয় মুক্তিমঞ্চের আহ্বায়ক আরও বলেন,‘এই সরকারকে কেউ ধাক্কা দিয়ে ফেলানোর দরকার নেই, মুভমেন্টের মাধ্যমেও ফেলারও দরকার নাই। কারণ, অর্থনৈতিক ধস যেকোনো সময় নামবে, ব্যাংকের অবস্থা লক্ষ্য করুন, ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ, বেকার যুবকদের চাকুরি নাই, তাহলে একটা দেশ কিভাবে চলে?’

দেশের বিচার ব্যবস্থা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘অন্যদিকে দেশে কোনো বিচার নেই। যেখানে যান আপনার সমস্যার কোনো সুরাহা নেই। হসপিটালে যান চিকিসা নেই, স্কুল কলেজে যান লেখা-পড়া নাই। এটা মনে হচ্ছে- কোনো আইন-কানুন এখানে চলছে না এবং সরকার নাই বললেই চলে।’

প্রধানমন্ত্রীর দেশের বাইরে সফর নিয়ে সমালোচনা করে কর্নেল অলি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী একমাস-দুই মাস পরপরই বাইরে যাচ্ছেন। মন্ত্রিসভার সদস্যরা তারাও ঘুরে বেড়াচ্ছেন। জবাবদিহিতা না থাকার কারণে জনগণ দিশেহারা। একটা সময় আসবে আপনাদেরকেই জনগণকে বোঝাতে হবে, ঐক্যবদ্ধ করতে হবে এবং মুক্তিমঞ্চের অধীনে তাদেরকে নির্বাচনের জন্য উদ্ধুব্ধ করতে হবে। আমি এটাই বলতেই চাই, যেকোনো সময়ে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। সরকারের পতন হবেই। এটা এখন সময়ের ব্যাপার।’

অলি আরও বলেন, ‘আপনাদেরকে বলতে চাই, এটা কোনো ৫/১০টা ঐক্যজোটের মতো বা কোনো মঞ্চের মতো মঞ্চ নয়। এই মঞ্চ আগামী দিনে এ দেশকে মুক্ত করার জন্য, জনগণকে মুক্ত করার জন্য, জনগণকে স্বাধীনতা দেয়ার জন্য এই মুক্তিমঞ্চ করা হয়েছে। আমরা আপনাদের সহযোগিতা চাই।’

সরকারের ব্যাপক দুর্নীতির বর্তমান প্রেক্ষাপট নিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘যা চলছে, তা মেগাদুর্নীতি। আপনারা পত্র-পত্রিকায় দেখেছেন,  সরকারের আমলে সুইস ব্যাংকে ৫ হাজার কোটি টাকার ওপরে জমা ও কানাডায় বেগম পাড়া হয়েছে। হাজার হাজার লোক টাকা পাঁচার করে মালয়েশিয়ায় চলে গেছে, হাজার হাজার লোক হংকং, সিঙ্গাপুর, ইংল্য্যান্ড, আমেরিকায় বিভিন্ন দেশে পার হয়ে গেছে। এই টাকা গরীব মানুষদের। ব্যাংকের টাকা না থাকার কারণ হলো এই টাকা বিদেশে চলে গেছে।’

রাজধানীর কাওরান বাজারের দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের শতাধিক নেতা-কর্মী জাতীয় মুক্তিমঞ্চে যোগান করেন। যোগদান অনুষ্ঠানে এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল, যোগদানকারীদের মধ্যে আইনজীবী শরীফ আবদুল্লাহ হিল সাকী, আবদুল জলিলসহ ওয়ালী উল্লাহ ফরহাদ প্রমুখ বক্তব্য দেন।