বৃহঃস্পতিবার | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • অন্টারিওতে আক্রান্তের সংখ্যা অস্বাভাবিক বেড়ে যেতে পারে
  • সংক্রমণের চতুর্থ ঢেউয়ের আশঙ্কা
সংক্রমণের চতুর্থ ঢেউয়ের আশঙ্কা

: ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | সালাহ উদ্দিন |

আরেকটি লকডাউন এড়ানো সম্ভব নাও হতে পারে

আরেকটি লকডাউন এড়াতে বাসিন্দারা দেখা সাক্ষাৎ সন্তোসজনক মাত্রায় কমিয়ে আনলে সংক্রমণের চতুর্থ ঢেউ প্রশমিত হতে পারে বলে মনে করেন অন্টারিওর মডেলিং টেবিলের কো-চেয়ার ডা. বিট স্যান্ডার। আর সেটা করতে ব্যর্থ হলে ফলের শেষ দিকে  সম্ভব নাও হতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন তিনি।  বুধবার প্রকাশিত মডেলিংয়ে প্রাক্কলন করা হয়েছে, পরিস্থিতি খুব বেশি খারাপ হলে অক্টোবর নাগাদ অন্টারিওতে দৈনিক সংক্রমণ ৯ হাজারে পৌঁছতে পারে। আর বর্তমান প্রবণতা বজায় থাকলে দৈনিক সংক্রমণ দাঁড়াবে ৪ হাজার। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের উপায়ও আছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে মডেলিংয়ে।

উপায় হিসেবে বলা হয়েছে, অন্টারিওবাসী তাদের মধ্যকার দেখা সাক্ষাৎ মহামারি-পূর্ব সময়ের তুলনায় যদি ৭০ শতাংশ কমিয়ে আনেন তাহলে সংক্রমণ কমতে শুরু করবে। জুন ও জুলাইয়ে যেখানে দেখা সাক্ষাৎ হ্রাস পেয়েছিল মহামারি-পূর্ব সময়ের তুলনায় ৮৩ শতাংশ।

মডেলিংয়ে প্রাক্কলন করা হয়েছে, প্রদেশে ভ্যাকসিনেশনের হার বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে এবং ভ্যাকসিন ডোজ পূর্ণ করা অন্টারিওবাসীর হার ৭৭ শতাংশ থেকে বেড়ে ৮৫ শতাংশে উন্নীত হবে। যদিও এটা নিশ্চিত নয়।

মডেলিং টেবিলের কো-চেয়ার ডা. বিট স্যান্ডার বৃহস্পতিবার একাধিক টুইট পোস্ট করেন। তাতে তিনি বলেন, অন্টারিওতে সংক্রমণের যে প্রবণতা তাতে করে অক্টোবর নাগাদ প্রদেশে দৈনিক আক্রান্তেরন সংখ্যা ৪ হাজারে পৌঁছতে পারে। তবে পরিস্থিতি খুব খারাপ হলে সংখ্যাটি ৯ হাজারে দাঁড়াতে পারে। এর কারণ মূলত সামনে লেবার ডের ছুটি, স্কুল খুলে দেওয়া এবং কিছু কর্মক্ষেত্রে সাক্ষাৎ বেড়ে যাওয়া, যার ফলে সংক্রমণ বৃদ্ধি। তবে তার মানে এই নয় যে, চলতি মাসেই অন্টারিও আরেকটি লকডাউনে পড়তে যাচ্ছে। অথবা স্কুলে আবার দূর শিক্ষণ শুরু হতে যাচ্ছে। আসল কথা হলো জনস্বাস্থ্য বিধি হিসেবে স্কুলের গুরুত্ব অনেক বেশি এবং যেকোনো মূল্যেই হোক এগুলোকে সুরক্ষিত রাখতে হবে। দেখা সাক্ষাৎ মোটামুটি মাত্রায় কমিয়ে আনার মধ্য দিয়ে আমরা চতুর্থ ে ঢউ প্রশমিত করতে পারি। এটা যত তাড়াতাড়ি হবে ততই ভালো। এতে যদি ব্যর্থ হই তাহলে ফলের শেষ দিকে আরেকটি লকডাউন এড়ানো সম্ভব হবে না।

সংক্রমণের বর্তমান ধারা অব্যাহত থাকলে আগামী মাসেই হয়তো ৫০০ কোভিড রোগীকে নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে দেখা যাবে। প্রথম দুই ঢেউয়ের তুলনায় সংখ্যাটা বেশি। তবে তৃতীয় ঢেউয়ে বিশেষ করে শুরুর দিকে নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে এতো বেশি সংখ্যক কোভিড রোগী দেখা যায়নি। তারপরও দেখা সাক্ষাৎ যদি মহামারি-পূর্ব সময়ের চেয়ে ৮০ শতাংশ কমানোও হয় তাহলেও নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রগুলোর সক্ষমতা শেষ হয়ে যাবে বলে জানান স্যান্ডার। 


[email protected] Weekly Bengali Times

-->