বৃহঃস্পতিবার | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • অন্টারিওতে আক্রান্তের সংখ্যা অস্বাভাবিক বেড়ে যেতে পারে
  • সংক্রমণের চতুর্থ ঢেউয়ের আশঙ্কা
ভ্যাকসিন অ্যাপয়েন্টমেন্টের অর্ধেকের বেশি প্রথম ডোজের

অন্টারিওর জনস্বাস্থ্য বিভাগের চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. কিয়েরান মুর বলেন, কমিউনিটিতে সংক্রমণ যাতে দ্রুত ছাড়াতে পারে সেজন্য অন্টারিওতে ভ্যাকসিনেশনের হার ৯০ শতাংশে উন্নীত করা প্রয়োজন। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রদেশে ১২ বছর ও তার বেশি নাগরিকদের ৭৬ দশমিক ৬ শতাংশ উভয় ডোজ ভ্যাকসিন নিয়েছেন। অন্তত এক ডোজ ভ্যাকসিন নিয়েছেন প্রদেশের ১২ বছর ও তার বেশি বয়সী ৮৩ শতাংশ নাগরিক। 

এদিকে, সুনির্দিষ্ট কিছু অনাবশ্যক স্থানে প্রবেশের ক্ষেত্রে পুরো ডোজ ভ্যাকসিন গ্রহণ বাধ্যতামূলক করার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অন্টারিওতে ভ্যাকসিন অ্যাপয়েন্টমেন্ট বেড়ে দ্বিগুন হয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী ক্রিস্টিন এলিয়ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ ঘোষণা দিয়ে বলেন, ভ্যাকসিন অ্যাপয়েন্টমেন্টের অর্ধেকের বেশি প্রথম ডোজের।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, গত ৩১ আগস্ট প্রাদেশিক বুকিং সিস্টেম ব্যবহার করে ৩ হাজার ৪৭৯টি অ্যাপয়েন্টমেন্ট বুক করা হয়। ১ সেপ্টেম্বর সংখ্যাটি এক লাফে বেড়ে দাঁড়ায় ৭ হাজার ১২৫টিতে। 

অন্টারিওর প্রিমিয়ার ডগ ফোর্ড বুধবার ভ্যাকসিন সনদ কর্মসূচি চালুর ঘোষণা দেন। এর আওতায় যারা সুনির্দিষ্ট কিছু অনাবশ্যক ইনডোর সেবা যেমন রেস্তোরাঁ, জিম, থিয়েটারে যেতে চাইলে বাধ্যতামূলকভাবে তাকে ভ্যাকসিন ডোজ পূর্ণ করতে হবে। এ ঘোষণার পর পরই প্রদেশে ভ্যাকসিন অ্যাপয়েন্টমেন্ট বেড়ে গেছে।

অন্টারিওতে ভ্যাকসিন সনদ ব্যবস্থা ২২ সেপ্টেম্বর কার্যকর হবে। তার আগে বাসিন্দাদের প্রাদেশিক সাইট থেকে ভ্যাকসিন রশিদ ডাউনলোড করে নিতে হবে। তবে মাসখানেকের মধ্যে কিউআর কোডসহ একটি অ্যাপ চলে আসবে বলে আশা করছে প্রদেশ। কিউআর কোডটি স্ক্যান করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো কোনো ব্যক্তির ভ্যাকসিনেশন সম্পর্কিত তথ্য জানতে পারবে।

কোভিড-১৯ সংক্রান্ত মডেল উপাত্তও বুধবার প্রকাশ করেছে অন্টারিও। তাতে বলা হয়েছে, ভ্যাকসিন না নেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে সিমপ্টোমেটিক কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি ছয়গুন বেশি। এছাড়া হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ঝুঁকি ৩০ গুন ও নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে যাওয়ার ঝুঁকি ভ্যাকসিন গ্রহীতাদের তুলনায় ৪৮ গুন বেশি।

দেখা সাক্ষাৎ না কমালে ও ভ্যাকসিনেশনের হার না বাড়ালে অন্টারিওতে কোভিড-১৯ এ আক্রান্তের সংখ্যা, হাসপাতালে রোগী ভর্তি বাড়তেই থাকবে বলেও মন্তব্য করা হয়েছে মডেলিংয়ে।


[email protected] Weekly Bengali Times

-->