আলিয়া বো কোহলির চেয়ে বড় তারকা জিয়াওমি রেডমি নোট ৩!
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
গুগলে এখন ভারতীয়রা সবচেয়ে বেশি কি খোঁজে? আলিয়া ভাট, নাকি জিয়াওমি রেডমি নোট ৩? প্রশ্ন করা হলো মানু জৈনকে।

জৈন চীনের প্রথম সারির স্মার্টফোন নির্মাতা জিয়াওমির ভারতীয় শাখার প্রধান। হাসি মুখে উত্তর দিতে প্রস্তুত হলেন। আরো দুই জন সেলিব্রিটির সঙ্গে তুলনা করলেন তিনি। বললেন, কাকে বেশি খোঁজে মানুষ? বিরাট কোহলি, নাকি রেডমি নোট ৩? নাকি শচীন টেন্ডুলকারকেই বেশি খোঁজে?

তার বাকি কথায় জিয়াওমির নতুন এই স্মার্টফোনের জনপ্রিয়তার কথা স্পষ্ট হবে। বললেন, গত মাস থেকে আমাদের কোনো ফোনই স্টকে নেই। এ বছরের প্রথম থেকেই রেডমি ৩ প্রতিদিন যতবার মানুষ গুগলে সার্চ করেছেন, এতবেশি অন্য কোনো সেলিব্রিটিকে সার্চ করেননি। কোহলি, আলিয়া বা রণবীর কাপুর পিছিয়ে আছেন।

জৈন এই অস্বাভাবিক তুলনা করেছেন আসলে স্মার্টফোনটির চাহিদা বোঝাতে। ভারতের মতো দেখে সিনেমা ও ক্রিকেট তারকার চেয়ে জনপ্রিয় আর কারা আছেন?

ভারত এবং আশপাশের দেশের মোবাইল ফোনের বাজারে বিক্রির তালিকায় জিয়াওমি রয়েছে চতুর্থ স্থানে। এক বিলিয়ন রেভিনিউ তুলতে সক্ষম হয়েছে তারা। ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা প্রকাশ পাচ্ছে গুগল সার্চের অবস্থা দেখেই। বাজারে প্রবেশের পর এ অঞ্চলে তারা ২০ লাখ মোবাইল বিক্রি করেছে।

চীনেও দারুণ বিখ্যাত জিয়াওমি। একে 'অ্যাপল অব চাইনা' নামে ডাকা হয় দেশটিতে। গোটা বিশ্বে খুব দ্রুত চাহিদার তালিকায় চলে আসে জিয়াওমি। গত বছর তারা ৬০ মিলিয়ন ডিভাইস বিক্রি করেছে।

জিয়াওমির ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস বিভাগের ভাইস প্রেসিডেন্ট হুগো বারা জানান, রেডমি নোটের ট্রেন্ড আমরা তৈরি করেছি। মানুষ শুধু রেডমি নোট খোঁজে। রেডমি নোট ৩ এতবেশি খোঁজা হচ্ছে তা কল্পনাতীত।

গত বছর বাজারে আসার পর থেকে  চাহিদা দিন দিন বেড়েছে। এখনো একই অবস্থায় রয়েছে। ৫.৫ ইঞ্চি আইপিএস এলসিডি পর্দা এর। পিক্সেল ডেনসিটি ৪.৩ পিপিআই। কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৫০ চিপসেট। জিপিইউ আদ্রিয়ানো ৫১০। অভ্যন্তরে ১৬ জিবি স্টোরেজের জন্য দেওয়া হয়েছে ২ জিবি র‍্যাম। আর ৩২ জিবির জন্য রয়েছে ৩ জিবি র‍্যাম। পেছনে দেওয়া হয়েছে এফ/২.০ অ্যাপারচারের ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। সামনের ক্যামেরাটি ৫ মেগাপিক্সেল। ব্যাটারি দারুণ শক্তিশালী, ৪০৫০এমএএইচ। সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

 

২১ জানুয়ারি, ২০১৭ ১৩:৪০:১২