আর্জেন্টিনার শেষ সুযোগ
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
লড়াইয়ের মঞ্চ আতাহুয়ালপা প্রস্তুত; মেসির ফুটবল জীবদ্দশার সবচেয়ে বড় পরীক্ষা নিতে প্রস্তুত ইকুয়েডরও। শুরু হয়ে গেছে ক্ষণ গণনাও। এখন কেবল সমরে নেমে পড়াটাই বাকি। জগতের সব আর্জেন্টাইন সমর্থকের মতো কাল ভোরে ঘুম ভেঙে টিভি পর্দায় চোখ রাখবে এদেশের সবথেকে ‘কুঁড়ে’ মেসিভক্তটিও। সৃষ্টিকর্তার নিকট ডি মারিয়া-ডিবালা-রোমেরোদের জন্য দু’হাত তুলে প্রার্থনা করবে নিজের মহাবিপদেও পরম করুণাময়কে স্মরণ করতে ভুলে যাওয়া মানুষটি!

বুধবার কাক ডাকা ভোরেই যে ইকুয়েডরের বিপক্ষে অস্তিত্ব রক্ষার ম্যাচে যে মাঠে নামবে শতকোটি মানুষের প্রিয় ফুটবল দল আর্জেন্টিনা। দিন গড়ানোর আগেই নির্ধারিত হয়ে যাবে তাদের বিশ্বকাপ ভাগ্য।

দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাই পর্বে বর্তমানে পয়েন্টস্ টেবিলের ৬ষ্ঠ স্থানে রয়েছে জর্জ স্যাম্পালির দল। এ অঞ্চল থেকে শীর্ষ চার দল সরাসরি ফুটবল মহাযজ্ঞে অংশ নেয়ার সুযোগ পাবে। আর পঞ্চম দলটিকে টপকাতে হবে প্লে-অফ বাধা। যেখানে তাদের জন্য অপেক্ষা করছে ওশেনিয়া অঞ্চলের শীর্ষ দল নিউজিল্যান্ড।

দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া আর্জেন্টাইনদের অন্তত পাঁচ নম্বরে উঠে আসতে হলে তাই জয় ছাড়া কোনো বিকল্প নেই। আর সেরা চারে জায়গা করে নিতে হলে জয়ের পাশাপাশি তাকিয়ে থাকতে হবে অন্য দলগুলোর দিকে। সেক্ষেত্রে বৈরিতা ভুলে ব্রাজিলের মঙ্গল কামনা করতে হবে আলবিসেলেস্তেদের। তালিকার তিনে থাকা চিলির বিপক্ষে ‘চিরশত্রু’দের জয়ই পারে মেসিবাহিনীর পথ অনেকটা সহজ করে দিতে।

এদিকে, ব্রাজিল-চিলি ম্যাচের পাশাপাশি পেরু-কলম্বিয়া ম্যাচের দিকেও তাকিয়ে থাকবে আর্জেন্টাইনরা। তবে এই ম্যাচে কারও জয় নয়; বরং ড্র কামনা করতে হবে দ্য হোয়াইট অ্যান্ড স্কাই ব্লুদের।

ব্রাজিল চিলিকে জিততে না দিলে আর পেরু-কলম্বিয়া পয়েন্ট ভাগাভাগি করে নিলে এক লাফে তিনে উঠে গিয়ে রাশিয়া যাত্রা নিশ্চিত করবে স্যাম্পাওলির শিষ্যরা।

তবে ইকুয়েডরকে হারাতে না পারলে দু’বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের জন্য এসব সমীকরণ কোনো কাজেই আসবে না। কিন্তু কাল যে ইকুয়েডরের চেয়েও আর্জেন্টিনার বড় প্রতিপক্ষ হতে যাচ্ছে ম্যাচ ভেন্যু আতাহুয়ালপা স্টেডিয়াম। কেননা লা পাজের পর বিশ্ব ফুটবলের আরেক বধ্যভূমি এই আতাহুয়ালপা। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৯,১২৭ ফুট উপরে এই ক্রীড়া ক্ষেত্রের অবস্থান। যেখানে নব্বই মিনিট দৌঁড়ানোই অনেক দূরহ ব্যাপার সেখানে এবার প্রাণ বাজি রেখে লড়তে হবে হ্যাভিয়ের মাশ্চেরানো-নিকোলাস ওটামেন্ডি-এভার বানেগাদের!

তার সাথে যুক্ত হয়েছে অতীত ইতিহাস। মেসিদের ভাগ্য এমন জায়গায় গিয়ে ঠেকেছে যেখানে গত ষোল বছরেও জয়ের মুখ দেখেনি আর্জেন্টিনা। শেষ চার দেখায় দুই হারের পাশাপাশি সমানসংখ্যক ম্যাচ ড্র করেছে আলবিসেলেস্তেরা।

দুইবারের বিশ্বসেরারা এবার কি পারবে পে-ুলামের মতো দুলতে থাকা ভাগ্যের পরিবর্তন আনতে? নাকি শতকোটি ভক্তকে কাঁদিয়ে চার যুগ পর ‘দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থে’স্রেফ দর্শক হয়েই বসে থাকবে? শিহরণ জাগানিয়া উপাখ্যানের শুরু হতে আর মাত্র কয়েক ঘণ্টাই বাকি

তবে যতই শঙ্কা থাকুক, আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ খেলবে— এ বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী দলের কোচ সাম্পাওলি। পেরুর বিপক্ষে ম্যাচের পর আর্জেন্টাইন কোচ বলেছিলেন, ‘আমি এখনো আত্মবিশ্বাসী। আমরা বিশ্বকাপ খেলতে পারব।’ সাম্পাওলির এ আত্মবিশ্বাসী উচ্চারণের অনুবাদ খেলোয়াড়রা মাঠে করতে পারলেই কেবল বিশ্বকাপের দরজাটা খুলতে পারে আর্জেন্টিনার জন্য।

 

১০ অক্টোবর, ২০১৭ ১১:০০:৫৭