হার দিয়ে টি২০ সিরিজ শুরু টাইগারদের
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে লঙ্কানদের সঙ্গে পেরে ওঠেনি লাল সবুজের জার্সিধারীরা। দারুণ দাপট দেখিয়ে বাংলাদেশকে ৬ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়ে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল স্বাগতিকরা। হার দিয়ে টি২০ সিরিজ শুরু টাইগারদের। কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৫৫ রানের মাঝারি সংগ্রহ গড়ে বাংলাদেশ। জবাবে ব্যাটিংয়ে নামা শ্রীলঙ্কা ৬ উইকেট ও ৭ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে নোঙর করে।

কুশল পেরেরা ও উপুল থারাঙ্গা উদ্বোধনী জুটিতে ৬৫ রান তোলে দলের জয়ের ভিত গড়ে দেন। মাশরাফি জোড়া আঘা হানলেও সেটি শ্রীলঙ্কার জয়ের পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি। শেষ দিকে দারুণ কার্যকরী বোলিং দিয়ে শ্রীলঙ্কাকে কোণঠাসা করে ফেলেছিল বাংলাদেশ। তবে সেটি শুধু লঙ্কানদের জয় বিলম্বিতই করেছে।

শ্রীলঙ্কার হয়ে কুশল পেরেরা ৫৩ বলে ৯টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৭৭ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন। থারাঙ্গা ২৩ বলে ২৮ রান করেন। শেষ দিকে ১৩ বলে ২৬ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন সেকুগে প্রসন্ন। বাংলাদেশের হয়ে মাশরাফি দুটি এবং তাসকিন নেন একটি উইকেট।

মাহমুদউল্লাহর করা ইনিংসের প্রথম ওভারে দেখেশুনে শুরু করেন দুই শ্রীলঙ্কান ওপেনার থারাঙ্গা ও কুশল; ওভার থেকে মাত্র দুই রান নেন তারা। তবে তাসকিন আহমেদের করা দ্বিতীয় ওভারে তিন-তিনটি চার মেরে বাংলাদেশের মনোবল ভেঙে দেয়ার চেষ্টা করেন থারাঙ্গা।

শুরুতে ঝড় তুলেই খোলসবন্দী হয়ে পড়েন থারাঙ্গা ও কুশল। তবে সাকিব আল হাসানের করা পঞ্চম ওভারেই খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসেন কুশল। প্রথম দুই বলে যথাক্রমে ছক্কা ও চার হাকিয়ে স্বাগতিক দর্শকদের আনন্দে ভাসান তিনি। এরপর ওভারের শেষ বলেও চার হাঁকান কুশল পেরেরা।

মোস্তাফিজুর রহমানের করা ষষ্ঠ ওভারের পঞ্চম ও ষষ্ঠ বলে চার মেরে ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠার ইঙ্গিত দেন কুশল। পরের ওভারে আক্রমণে এসে থারাঙ্গাকে আউট করে বাংলাদেশকে আনন্দে ভাসান মাশরাফি। তবে ততক্ষণে লঙ্কানদের স্কোরবোর্ডে ৬৫ রান ওঠে গেছে।

এরপর নবম ওভারে আক্রমণে এসে মুনাবিরাকে ফিরতি ক্যাচে প্যাভিলিয়নে পাঠিয়ে বাংলাদেশকে স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেন মাশরাফি। কিন্তু আসেলা গুনারত্নে ও কুশলের মধ্যকার ৪১ রানের জুটিতে সেই স্বপ্ন অনেকটাই মিইয়ে যায়।

দলীয় ১২০ রানের মাথায় গুনারত্নে যখন সাব্বিরের সরাসরি থ্রোতে রানআউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন তখনো জয়ের জন্য ২৭ বলে ৩৬ রান দরকার ছিল শ্রীলঙ্কার। শেষ দিকে শ্রীলঙ্কাকে কোণঠাসা করে ফেলেছিলেন মোস্তাফিজরা। তবে সেকুগের ঝড়ে সহজ জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে শ্রীলঙ্কা।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ ইনিংসের প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলে তামিম ইকবালের উইকেট হারায়। দ্বিতীয় উইকেটে সাব্বির রহমান ও সৌম্য সরকার দারুণ প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। এই দুজন ২৯ বলে ৫৭ রানের জুটি গড়লে ম্যাচে ফেরে টাইগাররা।

তবে এরপরই ছন্দপতন ঘটে বাংলাদেশ। দ্রুত সৌম্য ও সাব্বিরকে হারিয়ে চাপের মুখে পড়ে সফরকারীরা। এরপর ঘুরে দাঁড়ানোর আগে মুশফিকুর রহীম ও সাকিব আল হাসান সাজঘরে ফিরলে ৮২ রানে ৫ উইকেটে পরিণত হয় বাংলাদেশের ইনিংস। ষষ্ঠ উইকেটে মাহমুদউল্লাহ ও মোসাদ্দেক মিলে ৪২ বলে ৫৭ রানের দায়িত্বশীল জুটি গড়ে বাংলাদেশকে কক্ষপথে ফেরান। 

বাংলাদেশের হয়ে মোসাদ্দেক ৩৪*, মাহমুদউল্লাহ ৩১ ও সৌম্য সরকার করেন ২৯ রান। তামিম (০), মুশফিক (৮), ও সাকিব (১১) ব্যাট হাতে চরম ব্যর্থতার পরিচয় দেন। মাশরাফি ৫ বলে ৯ রান করে অপরাজিত ছিলেন। শ্রীলঙ্কার হয়ে লাসিথ মালিঙ্গা দুটি উইকেট নেন। একটি করে উইকেট নেন ভিকাম সঞ্জয়া, আসেলা গুনারত্নে ও সেকুগে প্রসন্ন। 

দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথমটিতে হার দিয়ে শ্রীলঙ্কা সফর শূরু করেছিল বাংলাদেশ। তবে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে জিতে ১-১ সমতায় শেষ করে টাইগাররা। এরপর তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজও ১-১ এ ড্র করে মাশরাফির দল। তবে প্রথম টি-টোয়েন্টিতে হেরে যাওয়ায় বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় সিরিজ হারের চোখ রাঙানি নিয়েই মাঠে নামবে বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার টি-টোয়েন্টি থেকে বিদায়ের ঘোষণা দেন মাশরাফি। শ্রীলঙ্কা সিরিজ শেষেই ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম ফরম্যাটকে গুডবাই বলবেন ম্যাশ। বৃহস্পতিবার তাই মাশরাফির বিদায়কে রঙিন করে তুলতেই মাঠে নামবেন সাকিব-মুশফিকরা। গত দেড় দশক ধরে যেভাবে বাংলাদেশ ক্রিকেটের সেবা করে আসছেন তাতে করে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির শেষ ম্যাচে জয় তো প্রাপ্যই মাশরাফির! সতীর্থরা কি পারবেন মাশরাফিকে সেটি উপহার দিতে!

শ্রীলঙ্কার একাদশ: কুশল পেরেরা, দিলশান মুনারাবিরা, উপুল থারাঙ্গা (অধিনায়ক), চামারা কাপুগেদারা, আসেলা গুনারত্নে, মিলিন্দা সিরিবর্ধনে, থিসারা পেরেরা, সেকুগে প্রসন্ন, নুয়ান কুলাসেকারা, লাসিথ মালিঙ্গা ও ভিকাম সঞ্জয়া।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মুশফিকুর রহীম, সাকিব আল হাসান, মোসাদ্দেক হোসেন, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মোস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদ। 

০৫ এপ্রিল, ২০১৭ ০০:১১:৫৮