‘মহাসচিবের ভুলের কারণে বিএনপির ক্ষতির দায় তাকেই নিতে হবে’
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট
বিএনপি নেতা তৈমুর আলম খন্দকার
বিএনপির সংসদে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত ভুল ছিল, মির্জা ফখরুলের এ বক্তব্যের পর দলের নেতারাই বলছেন, নির্বাচনের পর সংসদে না যাওয়ার সিদ্ধান্তে দলের যে ক্ষতি হয়েছে তার দায়ভার নিতে হবে শীর্ষ নেতাদেরই। আর ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শরিক গণফোরাম বলছে, নির্বাচনের চার মাস পরে নয়, এ উপলব্ধি হওয়া উচিত ছিল একমাসের মধ্যেই। তবে দলটির সভাপতি ড. কামাল হোসেন এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। এদিকে, আওয়ামী লীগ বলছে, মির্জা ফখরুলের শপথ না নেয়া দলটির জন্য আরো একটি ভুল।

গেল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনিপ ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মোট ৮ সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। জল্পনা কল্পনা আর নাটকীয়তা শেষে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মোট ৭ জন শপথ নিলেও শপথ নেননি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। যদিও প্রথম থেকেই বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তুলে শপথ না নেয়ার ঘোষণা দিয়ে আসছিল রাজনীতিতে সরকার বিরোধী এই শিবির।

সম্প্রতি শপথ না নেয়া বিএনপির ভুল ছিল মির্জা ফখরুলের এমন স্বীকারোক্তিতে গণফোরাম বলছে, তিন মাস পর নয়, এ উপলব্ধি হওয়া উচিত ছিল এক মাসের মধ্যেই। আর এতদিন শপথ না নেয়ার সিদ্ধান্ত বিএনপিকে পিছিয়ে দিয়েছে বলে জানান দলটির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তৈমুর আলম খন্দকার। তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, মহাসচিব যদি বলে থাকেন এতদিন শপথ না নেয়াটা ভুল ছিল, তাহলে তিনি এর অংশীদার। তার ভুলের কারণে আজকে দলের এই অবস্থা।

এদিকে সিলেটে বিকেলে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ সময় সংবাদকে বলেন, মির্জা ফখরুলের শপথ না নেয়া আরো একটি ভুল।মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, এ যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শপথ নেননি, এটা একটি দুরভিসন্ধি ভুল। যে ভোটাররা তাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন, তাদের প্রতি মির্জা ফখরুল চরম অবমাননা করেছেন।' ৯০ কার্যদিবসের মধ্যে শপথ না নেয়ায় মির্জা ফখরুলের বগুড়া -৬ আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়।

 

 

০৬ মে, ২০১৯ ১১:৫৫:৪৫