আবরারকে চাপা দেওয়া বাসের বিরুদ্ধে মামলা ছিল ২৭টি
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট
ঢাকার বসুন্ধরা এলাকায় মঙ্গলবার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যায়ের ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরীকে চাপা দেয়া সুপ্রভাত পরিবহণের বাসটির বিরুদ্ধে আগে ২৭টি মামলা হয়েছে৷ নেই ‘রুট পারমিট', চালকের নেই লাইসেন্স৷ তারপরও বাসটি সড়কে চলত নির্বিঘ্নে৷ ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বৃহস্পতিবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে জানান, ‘‘ওই বাসটির বিরুদ্ধে আগে শুধু ২৭টি মামলাই নয়, বাসটির রুট পারমিটও নেই৷ রুট পারমিট ছিল ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়ার৷ তারপরও বাসটি ঢাকা শহরে চলাচল করত৷''

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, বসুন্ধরা গেট এলাকায় বিইউপি শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরীকে চাপা দিয়ে মেরে ফেলা সুপ্রভাত পরিবহনের বাসটির ঢাকায় চলাচলের অনুমতি ছিল না। ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়ার রুট পারমিট ছিল ওই বাসটির। শুধু তাই নয়, ওই বাসটির নামে এর আগে ২৭ বার মামলা দেওয়া হয়েছিল।

মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে রাজধানীর প্রগতি সরণি এলাকায় যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে বাসচাপায় নিহত হন আবরার আহমেদ চৌধুরী। এ ঘটনার পর বাসচালক ও হেলপার পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে চালককে ধরে ফেলে সেখানে থাকা শিক্ষার্থীরা। পরে তাকে আটক এবং বাসটি জব্দ করে পুলিশ।

আবরার নিহতের ঘটনায় আন্দোলনে নামেন শিক্ষার্থীরা। বুধবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম ও ঢাকার পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বসুন্ধরা গেটে গিয়ে সেখানে আবরারের নামে একটি ফুটব্রিজের ভিত্তিফলকও উন্মোচন করেন, যা ছিল আন্দোলনকারীদের অন্যতম দাবি। পরে শিক্ষার্থীদের ১০ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল মেয়রের সঙ্গে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন কার্যালয়ে গিয়ে বৈঠকে বসে। বৈঠকে সাত দিনের জন্য কর্মসূচি স্থগিত করা হয়।

২২ মার্চ, ২০১৯ ০০:৫৯:০৩