ছাত্রলীগের শোভন পরাজিত, তুমুল প্রতিবাদ ছাত্রলীগের
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
ভিসিকে ঘিরে কর্মীদের বিক্ষোভ থামানোর চেষ্টা করছন ছাত্রলীগ সভাপতি
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ প্যানেলের নুরুল হক নুরকে সহসভাপতি (ভিপি) ঘোষণার পর পরই বিক্ষোভ দেখিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। সোমবার (১১ মার্চ) সিনেট ভবনে মধ্য রাতে ফল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে সংগঠনটি। পরে ভোর পাঁচটা পর্যন্ত ক্যম্পাসের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ চলছিল। ভিপি হিসেবে নুরকে প্রত্যাখান করে ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান নেয় মহসীন হলের একদল শিক্ষার্থী। তাদের বিক্ষোভে শিবির বিরোধী স্লোগান উঠে।

সোমবার (১১ মার্চ) মধ্য রাতে সিনেট ভবনে ফল ডাকসুর ফল ঘোষণা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান।রাত সাড়ে তিনটার দিকে সিনেট ভবনে ভিপি হিসেবে নুরের নাম ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই ‘ভুয়া ভুয়া’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন ছাত্রলীগের নেতারা। নুরের ভোট সংখ্যা জানানোর পর পরপরই হইচইয়ে উত্তাল হয়ে উঠে সিনেট অডিটরিয়াম। ‘মানি না, মানবো না’ বলেও স্লোগান দেয় ছাত্রলীগের কর্মীরা। সিটেন ভবেনর ভেতরেই চলতে থাকে এ প্রতিবাদ। তবে, হইচইয়ের মধ্যেই ফল ঘোষণার কার্যক্রম চালিয়ে যেতে থাকেন উপাচার্য।

পরে ফল ঘোষণার কার্যক্রম শেষ হওয়ার পরও চলে এ বিক্ষোভ। তবে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারা কর্মীদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। আধা ঘন্টারও বেশি সময় ধরে চলতে থাকা এ বিক্ষোভ শেষে সিনেট ভবন থেকে উপাচার্যসহ অন্য শিক্ষকদের বের হয়ে যেতে সাহায্য করেন ছাত্রলীগ রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও গোলাম রাব্বানী। সিটেন ভবনে উত্তেজনা থামানোর এক পর্যায়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ভিসিকে বলেন, ‘স্যার আপনার বাসায় যারা হামলা করেছে তারা ঢাবির ভিপি হবে, ছাত্রলীগ তা মানবে না। সাধারণ ছাত্ররা তাকে (নুর) মানবে না।’ এসময় ভিসি সম্বোধনসূচক মাথা নাড়ালেও কোন প্রতিউত্তর করেননি।

এদিকে, ভিপি পদে নরুকে প্রত্যাখান করে চারটার কিছু পরে ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়েছে মহসিন হলের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। একশ থেকে দেড়শ শিক্ষার্থী সেখানে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে। সেখানে স্লোগান উঠেছে শিবিরের বিরুদ্ধেও।

১১ হাজার ৬২ ভোট  পেয়ে ডাকসুর ভিপি পদে জয় পেয়েছেন কোটা আন্দোলনের নেতা ও ছাত্র অধিকার রক্ষা পরিষদ প্যানেলের প্রার্থী নুরুল হক নুর। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন পেয়েছেন ৯ হাজার ১২৯ ভোট। নুর ছাড়াও কোটা আন্দোলনের আরেক নেতা আখতার হোসেন সমাজসেবা সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন। এ দুটি পদ বাদে বাকিরা ছাত্রলীগের।

ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে বিজয়ী বাকিরা হলেন— সাধারণ সম্পাদক (জিএস) পদে গোলাম রাব্বানী, সহসাধারণ সম্পাদক (এজিএস) পদে সাদ্দাম হোসেন, স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ সম্পাদক পদে সাদ বিন কাদের, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক পদে আরিফ ইবনে আলী, কমন রুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক পদে বি এম লিপি আক্তার, আন্তর্জাতিক সম্পাদক পদে শাহরিমা তানজিনা অর্নি, সাহিত্য সম্পাদক পদে মাজহারুল কবির শয়ন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে আসিফ তালুকদার, ক্রীড়া সম্পাদক পদে শাকিল আহমেদ তানভির ও ছাত্র পরিবহন সম্পাদক পদে শামস-ই-নোমান।

১২ মার্চ, ২০১৯ ০৮:৫৪:৫০