ঢাকায় শুরু মাসব্যাপী ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট
ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম দিনই ঢাকায় শুরু হল বাঙালির প্রাণের উৎসব ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’। শুক্রবার বিকেলে ঢাকার বাংলা অ্যাকাডেমি চত্বরে ১৬তম এই মেলার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সঙ্গে ছিলেন এপার বাংলার বিশিষ্ট কবি শঙ্খ ঘোষ, ছিলেন মিশরের লেখক, গবেষক ও সাংবাদিক মোহসেন আল-আরিশি। উদ্বোধনী সংগীত ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ সমবেত কণ্ঠে পরিবেশনের পর ভাষা আন্দোলনের শহিদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এদিনের মঞ্চ থেকেই ২০১৮ সালের বাংলা অ্যাকাডেমি সাহিত্য পুরস্কার বিজয়ীদের হাতে তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

বাংলা অ্যাকাডেমি আর সোহরাওয়ার্দি উদ্যানে বইপ্রেমীরা মেতে উঠবেন নতুন বইয়ের ঘ্রাণে। একুশে  গ্রন্থমেলা ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রতিদিন বিকেল ৩টে থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।  ছুটির দিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মেলায় ঘুরতে পারেন বইপ্রেমীরা। ২১ ফেব্রুয়ারি, ভাষা দিবসে, সকাল ৮টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত চলবে বইমেলা। বাংলা অ্যাকাডেমি প্রাঙ্গণ এবং অ্যাকাডেমির সামনের ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দি উদ্যানের প্রায় তিন লক্ষ বর্গফুট জায়গায় এবারের মেলা শুরু হয়েছে। যা গতবারের চেয়ে প্রায় ২৫ হাজার বর্গফুট বেশি।  মেলায় মোট ৪৯৯টি প্রতিষ্ঠানের জন্য ৭৭০টি ইউনিট বরাদ্দ করা হয়েছে। গ্রন্থমেলায় টিএসসি ও দোয়েল চত্বর – দু’দিক দিয়ে দুটি মূল প্রবেশপথ থাকবে। এখান দিয়ে ঢোকার পর বাংলা অ্যাকাডেমি প্রাঙ্গণের জন্য তিনটি এবং সোহরাওয়ার্দি উদ্যানের ছ’টি প্রবেশ ও প্রস্থান পথ থাকবে।  মেলার সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে পুলিশ, র‌্যাব, আনসার, বিজিবি ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর নিরাপত্তাকর্মীরা।  বইমেলায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার জন্য মেলার গোটা এলাকাজুড়ে তিনশোরও বেশি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানো হয়েছে। 

মেলা কর্তৃপক্ষ সূত্রে খবর, এনিয়ে ১৬ বার অমর একুশে গ্রন্থমেলা শুরু হল শেখ হাসিনার হাত দিয়ে। রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে ১৬ বার বইমেলা উদ্বোধনের রেকর্ড আর কারও নেই বলে দাবি তাঁদের। উদ্যোক্তারা আশা করছেন, অন্যান্য বছরের মতো ৪০তম অমর একুশে গ্রন্থমেলাতেও ভিড় জমাবেন সাহিত্যপ্রেমীরা। অংশ নেবেন দেশবিদেশের অনেকেই। সবমিলিয়ে, আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস উপলক্ষ্যে এখনই উৎসবে মেতে উঠেছে পদ্মাপাড়ের দেশ।


 

০১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২৩:১০:১৪