মন্ত্রিসভার শপথ অনুষ্ঠানে যাননি এরশাদ-রওশন
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
সোমবার বিকেলে বঙ্গভবনে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনাসহ মন্ত্রিসভার ৪৭ জন সদস্য শপথ গ্রহণ করেন। বঙ্গভবনে ঢোকার জন্য দুপুরের পর থেকেই ভিড় জমছিল। প্রায় হাজার খানেক অতিথি আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন। শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার বেশ আগেই দরবার হল পরিপূর্ণ। তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগ এবং তাদের সমর্থক বিভিন্ন পেশাজীবী এবং অঙ্গ সংগঠনের নেতাদের সংখ্যাই বেশি। আর ছিলেন সামরিক-বেসামরিক আমলা এবং বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকরা। আওয়ামী লীগের যে সিনিয়র নেতারা এবার মন্ত্রিসভায় ডাক পাননি, তাদের অনেককেই দেখা গেছে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে। সামনের দিকের কাতারেই বসেছিলেন সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, আমির হোসেন আমু, মতিয়া চৌধুরী। ছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী এ এম এম মুহিত। তাদের অনেকেই ছিলেন বেশ গুরুগম্ভীর। তবে বঙ্গভবনে নতুন মন্ত্রিসভার শপথ অনুষ্ঠানে যাননি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ ও কো-চেয়ারম্যান দশম জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ।

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিরোধী দলীয় উপনেতা জিএম কাদেরও শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দেননি। তবে তাঁর (জিএম কাদের) যাওয়ার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু আমন্ত্রণপত্র না পাওয়ায় যেতে পারেননি বলি জানান তিনি।

জিএম কাদের ইউএনবিকে বলেন, ‘অসুস্থ থাকার কারণে এরশাদ বঙ্গভবনের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারেননি। আমাদের চেয়ারম্যান শনিবার রাত থেকে ঢাকার সিএমএইচে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তবে ম্যাডাম (রওশন) কী কারণে অনুষ্ঠানে যাননি, তা আমি জানি না।’

সিঙ্গাপুরে দীর্ঘদিন চিকিৎসা শেষে নির্বাচনের মাত্র কয়েকদিন আগে দেশে ফেরা জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ আগামী ১৮ জানুয়ারি চিকিৎসার জন্য আবারও সিঙ্গাপুর যেতে পারেন বলে জানান জিএম কাদের।

আগের মন্ত্রিসভার দুজন প্রতিমন্ত্রীসহ জাতীয় পার্টির কয়েকজন জ্যেষ্ঠ  নেতা জানান, তাঁরা ব্যক্তিগত কারণে বঙ্গভবনের শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দেননি।

জাতীয় পার্টির শীর্ষ নেতারা নতুন মন্ত্রিসভায় শপথ না নিলেও পার্টির সংসদ সদস্য ফখরুল ইমাম জানান, তিনিসহ দলের পাঁচজন সহকর্মী শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন। এর আগে ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদের মন্ত্রিসভার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে এরশাদ ও রওশন উভয়ই যোগ দিয়েছিলেন। ওই মন্ত্রিসভায় তাদের দলের তিনজন সদস্য ছিল।

তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরে পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ জানান, তাঁর দল জাতীয় পার্টি এবার বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করবে। তাঁর এ সিদ্ধান্ত বিজ্ঞপ্তি আকারে গত ৪ জানুয়ারি গণমাধ্যমেও পাঠান তিনি।

০৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ২৩:২৩:২১