'বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থে ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে'
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ক্রসফায়ার, বিচারবর্হিভূত হত্যা ও নির্যাতনের বিচার করবেন আল্লাহ , এ বিশ্বাস আমরা করি।  সোমবার রাতে বিএনপি চেয়ারপার্সনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের নির্যাতিত নিপীড়িত নেতাকর্মী ও তাদের স্বজনদের সঙ্গে ঈদ পূর্ব শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

বাংলাদেশ আজকে সত্যিকার অর্থে একটি ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আজ জনগণের কোন স্বাধীনতা নেই, সমস্ত মৌলিক অধিকারগুলোকে হরণ করা হয়েছে, বেঁচে থাকার কোন নিরাপত্তা নেই, প্রতিবাদ করা যাবে না। আর তারাই (সরকার) নির্ধারণ করবে কে বেঁচে থাকবে, আর কে বেঁচে থাকবে না! সুতরাং মানুষের নিরাপত্তা তো দূরে থাক তাদের স্বাভাবিক মৃত্যুও গ্যারান্টি নেই এখন। 

তিনি বলেন, দেশে নির্যাতন মাত্রা এমন পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে, এখন সম্ভবত এদেরকে কারো কাছে জবাবদিহিতাও করতে হয় না!  ক্রসফায়ার, বিচারবর্হিভূত হত্যা, নিখোঁজ করে দেয়া, পুলিশ কাষ্টরিতে নির্যাতন, প্রকাশে গুলি করা এবং হাঁটুতে গুলি করে পঙ্গু করে দেয়া! আর আমরা এমন এক দেশে বাস করছি, যেখানে শিশুর আর্তনাদ এবং কান্নাও কারো কানে গিয়ে পৌঁছায় না। ভয়াবহ একটা পৈশাচিক কারাগারে বাস করছি আমরা। 

মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের সন্তানদের তুলে নিয়ে গেছে, নিখোঁজ হয়ে গেছে। যে রাষ্ট্রের দায়িত্ব নাগরিকদের রক্ষা করা, সেই রাষ্ট্রের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের তুলে নিয়ে গেছে। আর এখন তারা কেউ কোন কথা বলে না। 

দলের নির্যাতিত নেতাকর্মীদের স্বজনদের উদ্দেশ্য করে কান্নাঝরা কণ্ঠে তিনি বলেন, আপনারা নিজেদের অসহায় ভাববেন না। এদেশের মানুষ আপনাদের সাথে আছে। আপনাদের কষ্ট। আপনাদের শোককে শক্তিতে পরিণত করতে হবে। এ যে ভয়াবহ দানব আমাদের বুকের ওপরে চেপে বসে আছে। আমাদের শিশু ও মাদের কাঁদাচ্ছে, এই দানবকে অপসারণ করতে হবে। 

বিএনপি মহাসচিব আরো বলেন, আপনাদের ছেলেরা হারিয়ে গেছে তেমনি অনেকের ছেলেরা নিহত হয়েছে, কারাগারে যাচ্ছে। আমরাও কারাগারে যাচ্ছি। ম্যাডাম কারাগারে আছে। এই ত্যাগ বৃথা যাবে না। মাতার অশ্রুধারা কখনো বৃথা যায় না। আজকে মায়েরা ও শিশুরা কাঁদছে। এটা বৃথা যাবে না। নিঃসন্দেহে এদেশের মানুষ জেগে উঠবে। সত্যিকার অর্থেই তারা একটি শান্তিময় দেশ তৈরি করবে। 

এসময় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, চেয়ারপার্সনের একান্ত সচিব এবিএম আব্দুস সাত্তার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে বিএনপির নির্যাতিত নিপীড়িত নেতাকর্মী ও তাদের স্বজনদের আর্থিক অনুদান প্রদান করেন মির্জা ফখরুল। অনুদান প্রদানের সময় তিনি সময় শারীরিক খোঁজ-খবর নেন।

২০ আগস্ট, ২০১৮ ২৩:২৪:৪৩