কানাডার প্রধানমন্ত্রী অসৎ ও দুর্বল: ট্রাম্প
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
জি-৭ সম্মেলনের আয়োজক রাষ্ট্র কানাডার বিরুদ্ধে অসততার অভিযোগ এনে সম্মেলন শেষে প্রকাশিত যৌথ বিবৃতি থেকে নিজের নাম সরিয়ে নিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। জি-সেভেন শুরু হওয়ার আগেই মতানৈক্যের সুর শোনা গিয়েছিল শেষটাও হলো একই ধারাবাহিকতায়। আর শনিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা বিবৃতি’র অভিযোগ তোলার মধ্য দিয়ে এটি পরিপূর্ণতা পেলো। একইসঙ্গে জি-সেভেনে গ্রুপের সম্মিলিত বিবৃতিও যুক্তরাষ্ট্র সই করবে না বলে জানিয়েছেন। খবর বিবিসির।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো ভুল বক্তব্য দিয়েছেন। এ ছাড়া উন্নত সাত দেশের জোট জি-৭-এর ইশতেহারে সমর্থন দেবেন না বলে জানান তিনি। শনিবার টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘সংবাদ সম্মেলনে জাস্টিনের ভুল বক্তব্যের ভিত্তি করে বলা যায় এবং এটা সত্য যে কানাডা আমাদের মার্কিন কৃষক, শ্রমিক ও প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর বেশি ট্যারিফ (শুল্ক) আরোপ করছে। আমাদের প্রতিনিধিদের আমি নির্দেশ দিয়েছি ইশতেহারে সমর্থন না দিতে। যুক্তরাষ্ট্রে স্রোতের মতো ঢোকা অটোমোবাইল প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর আমরা শুল্ক আরোপের চিন্তা করছি।’

দ্বিতীয় টুইটে ডোনাল্ড ট্রাম্প আরো বলেন, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো খুব অসৎ ও দুর্বল। এর কিছুক্ষণ আগেই ট্রুডো বলেন, তিনি এ ঘোষণা দিয়ে খুশি যে সাতটি দেশ যৌথ ইশতেহার প্রকাশ করেছে। যুক্তরাষ্ট্র এতে সই করেছে বলে ইঙ্গিত দেন।

এরপর ট্রাম্প ঘোষণা দেন, যুক্তরাষ্ট্র তার সিদ্ধান্ত পাল্টে দেবে এবং ইশতেহারে সই করবে না। পরে কানাডার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বলা হয়, জাস্টিন ট্রুডো এমন কোনো কথা বলেননি, যা আগে কখনো আলোচনা হয়নি। উন্মুক্ত পরিবেশে ও একান্ত বৈঠকে যে কথা হয়েছে, তাই তিনি সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন।

জি-৭ জোটের সদস্য দেশগুলো হলো কানাডা, ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, জাপান ও ইতালি। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কানাডায় জি-৭ সম্মেলনের আউটরিচ কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন।

 

১০ জুন, ২০১৮ ১১:২৪:৪৮