‘এর নীচে কী আছে, দেখাও...’
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
প্রতীকী ছবি
মাধুরী দীক্ষিতের সেই বিখ্যাত ‘চোলি কে পিছে ক্যায়া হ্যায়’ গানটির কথা মনে আছে তো। নব্বই দশকের সেই হিট গানের যেন নতুন দৃশ্যায়ন হয়ে গেল গত রবিবার, ভারতের ইন্দোর শহরে।

সেদিন সকালে জনবহুল রাস্তায় স্কার্ট ধরে টানাটানি করে এক মডেলের শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেছে দুষ্কৃতিকারীরা। আর তারা বলছে, ‘দিখাও, ইস্কে নীচে কেয়া হ্যায়’। নিজেকে বাঁচাতে গিয়ে টাল সামলাতে না পেরে রাস্তায় পড়ে গিয়ে আহত হন ওই মডেল। তার হাতা-পায়ের ক্ষত থেকে রক্ত বের হতে থাকে। পরে এক প্রবীণ এসে তাকে উদ্ধার করেন।

এই নেক্কারজনক ঘটেছে ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার সকালে ইন্দোর শহরের এক অভিজাত শপিং মলের সামনে। পরে এই ঘটনা নিয়ে টুইট করেন সেই মডেল। তার টুইট থেকেই এই খবর বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

টুইটারে মধ্যপ্রদেশের ওই জনপ্রিয় মডেল অভিযোগ করেছেন, রবিবার সকালে তিনি যখন ইন্দোরের একটি জনবহুল রাস্তা দিয়ে স্কুটার চালিয়ে যাচ্ছিলেন, তখন মোটরবাইকে করে দু’জন এসে তার পথ রোধ করে। বাইক থেকে নেমে তারা মডেলের স্কার্ট ধরে টানাটানি করতে থাকে। আর চেঁচিয়ে বলতে থাকে, ‘দিখাও, ইস্কে নীচে কেয়া হ্যায়?’ বাংলায় এর অর্থ হল:‘দেখাও, এর (স্কার্টের) নিচে কি আছে, দেখাও!’

ওই দু’জনের হাত থেকে নিজেকে বাঁচাতে তাড়াতাড়ি স্কুটার থেকে নামতে গিয়ে রাস্তায় পড়ে যান সেই মডেল। ফলে তিনি আহত হন। মডেলের অভিযোগ, সকালে ব্যস্ত রাস্তায় ওই ঘটনার সময় কেউই এগিয়ে আসেননি তাকে সাহায্য করতে। পরে এক প্রবীণ ভদ্রলোক এসে তাকে উদ্ধার করেন। তবে তিনিও নাকি স্কার্ট পরার জন্য বকাঝকা করেন ওই মডেলকে। টুইটে তার হাত, পায়ের কেটে যাওয়া অংশের ছবিও দিয়েছেন ওই মডেল।

টুইটে ওই মডেল লিখেছেন, ‘আমি তখন ব্লগারদের একটি আলোচনাসভা থেকে ফিরছিলাম। স্কার্ট পরে স্কুটার চালাচ্ছিলাম। সেই সময় বাইকে চেপে এসে দু’জন আমার পথ আটকে দাঁড়ায়। ওরা আমার স্কার্ট ধরে টানাটানি করতে শুরু করে। আর বলতে থাকে, “দিখাও, ইস্‌কে নীচে কেয়া হ্যায়?” কয়েক মুহূর্তের ঘটনা। কিন্তু রাস্তার লোকজন এসব দেখেও কিছু বলেনি এবং ওদের বাধা দেননি।’

তাকে অপদস্ত করা পর কিছু ওই দুই দুষ্কৃতিকারী বাইক চালিয়ে উধাও হয়ে যায়। ঘটনাটা এত তাড়াতাড়ি ঘটে যে বাইকের নাম্বার প্লেটও পড়ে ওঠার ফুরসৎ পাননি ওই মডেল।

যে প্রবীণ ভদ্রলোক পরে উদ্ধার করেন তাকে, টুইটে তার একটি মন্তব্য নিয়েও বিরক্তি প্রকাশ করেছেন ওই মডেল। ওই মডেল বলেন, ‘ওই ভদ্রলোক আমাকে বলছিলেন, আমি কেন স্কার্ট পরেছি? এতে আমি খুব বিরক্ত হয়েছি। আমি পোশাক পরব আমার ইচ্ছে মতো। ওই পোশাক পরেছি বলে তো কেউ ওই দুষ্কৃতীদের অধিকার দেয়নি এমন আচরণ করার।’

এ সম্পর্কে ইন্দোর পুলিশের ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল (ডিআইজি) হরিনারায়ণচারী মিশ্র বলেছেন, আমরা এ ব্যাপারে এখনও পর্যন্ত কোনও লিখিত অভিযোগ পাইনি। পেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

 

 

 

২৪ এপ্রিল, ২০১৮ ১০:৪৩:২৮