সুফিয়া কামাল হলে নির্যাতনকারী কে এই এশা?
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট


মঙ্গলবার গভীর রাতে আবারও শিক্ষার্থীদের স্লোগানে স্লোগানে প্রকম্পিত হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস।এসময় কবি সুফিয়া কামাল হলে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করা হয়। হলের মেয়েদের পিটিয়ে রক্তাক্ত করার অভিযোগও পাওয়া যায়। আর এই ঘটনার নেতৃত্ব দেন ইসরাত জাহান এশা। ইসরাত জাহান এশা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী এবং কবি সুফিয়া কামাল হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি। তার বাড়ি ঝিনাইদহে।

কোটা সংস্কারের আন্দোলনে অংশ নেয়ায় গতকাল রাতে উদ্ভিদ বিদ্যা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী মোর্শেদা আক্তারকে নিজের রুমে ডেকে নিয়ে যান হলের সভাপতি এশা। পরে তাকে মারধর করেন।

একপর্যায়ে মোর্শেদার পা ধারালো বস্তুর আঘাতে কেটে যায় বলে হলের অনেক সাধারণ ছাত্রী অভিযোগ করেন। এছাড়া অপর একজনের মাথায় সেলাই দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

ঘটনার পরই কয়েকশ ছাত্রী এশাকে তার কক্ষে অবরুদ্ধ করে স্লোগান দিতে থাকেন। খবর পেয়ে অন্যান্য হল থেকেও শিক্ষার্থীরা মিছিল নিয়ে সুফিয়া কামাল হলের সামনে আসেন। এরপরই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এবং ছাত্রীদের মারধর অভিযোগে ছাত্রলীগ, হল এবং বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এশাকে বহিষ্কার করা হয়।

আন্দোলনরত ছাত্রীদের ওপর নির্যাতন ও এক ছাত্রীর পায়ের রগ কেটে দেয়ার অভিযোগে ছাত্রলীগ এবং ঢাবি থেকে বহিষ্কৃত ইফফাত জাহান এশার বাড়ি ঝিনাইদহে। সে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি সুফিয়া কামাল হল ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছিল। ছাত্রলীগ নেত্রী এশা ঝিনাইদহ শহরের আরাপপুরের মো: ইসমাইল হোসেন বাদশার মেয়ে। বাদশা জেলা দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি)।

 খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এশা ঝিনাইদহ সরকারি বালিকা বিদ্যালয় থেকে ২০১০ সালে মানবিক বিভাগে এসএসসি ও ২০১২ সালে ঝিনাইদহ সরকারি নুরুন্নাহার মহিলা কলেজ থেকে একই বিভাগ নিয়ে এইচএসসি পাস করেন। এরপর ২০১২-২০১৩ শিক্ষাবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে ভর্তি হন। বর্তমানে তিনি স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী।

এ বিষয়ে কথা বলা হলে ছাত্রলীগ নেত্রী এশার বাবা ইসমাইল হোসেন বলেন, আমার মেয়ের বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ মিথ্যা, ভুয়া। এটা পুরোপুরি একটা ষড়যন্ত্র।

ঢাবি ভিসির বাসভবনে যেমনভাবে হামলা করে মিথ্যা রটানো হয়েছে, ঠিক তেমনি তার মেয়ের বিরুদ্ধেও এসব মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে বলে দাবি অভিযুক্ত ও বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেত্রী এশার বাবার।


১১ এপ্রিল, ২০১৮ ১৫:২৭:১৫