ইন্টারনেটের গতি কমানোর সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট
চলমান এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধে ইন্টারনেটের গতি কমানোর যে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল তা প্রত্যাহার করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (বিটিআরসি)। সোমবার সকালে ইন্টারনেটের গতি স্বাভাবিক রাখতে নতুন নির্দেশনাটি ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়েকে (আইআইজি) মেইল করেছেন বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড অপারেশন বিভাগের সিনিয়র সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল আমিন। সেখানে বলা হয়, ইন্টারনেটের গতি এখন থেকে আগের মতোই স্বাভাবিক থাকবে।

এদিকে বাংলাদেশে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন আইএসপিএবিএ’র সভাপতি আমিনুল হাকিম জানিয়েছেন, সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে সোমবার সকালে বিটিআরসি থেকে মেইল করে ইন্টারনেটের গতি স্বাভাবিক রাখতে বলা হয়। এখন  ইন্টারনেটের স্বাভাবিক গতি ফিরে এসেছে। ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) থেকে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ সরবরাহ স্বাভাবিক করা হয়েছে।

এর আগে এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে বাকি পরীক্ষাগুলোতে সকালে আড়াইঘণ্টা ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে রাখতে সব আইএসপি ও মোবাইল অপারেটরদের নির্দেশনা দিয়েছিল বিটিআরসি। গতকাল রোববার রাত ১০টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত আধাঘণ্টা পরীক্ষামূলকভাবে দেশের সব ইন্টারনেট প্রোভাইডারের ব্যান্ডউইথ প্রতি সেকেন্ড ২৫ কিলোবিটের মধ্যে সীমিত রাখা হয়।

রোববার সকালে এসএসসি পরীক্ষা শুরুর সময় সকাল ৮টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত শুধুমাত্র মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেয় বিটিআরসি। তবে বিটিআরসির পক্ষ থেকে এক ঘণ্টা মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধ রাখতে বললেও ১০টা থেকে ৩০ মিনিটের জন্য এ সেবা বন্ধ ছিল।

এই সময়ের মধ্যে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবায় কোনো বিঘ্ন না ঘটলেও পরের নির্দেশনায় সকল ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ১৩, ১৫, ১৭, ১৮, ১৯, ২০, ২২ ও ২৪ ফেব্রুয়ারি পরীক্ষার দিন সকালে আড়াইঘণ্টা এবং ১৮ ফেব্রুয়ারি দুপুর ১২টা থেকেও আড়াইঘণ্টা ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে রাখতে বলা হয়।

 

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১০:৫৫:৩৯