মুরাদনগরে ইউএনও মিতু মরিয়মের ফোন নম্বর ক্লোন করে প্রতারণা!
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট
কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিতু মরিয়মের ব্যবহৃত সরকারী মুঠোফোন নম্বর ক্লোন করা হয়েছে। এখন ওই নম্বর থেকে তার নাম ভাঙ্গিয়ে উপজেলার বিভিন্ন জনপ্রতিনিধির কাছে ফোন করে টাকা চাওয়া হচ্ছে। রোববার রাতে উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি মুরাদনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সরকারী মুঠোফোন নম্বর ক্লোন করে একটি সংঘবদ্ধ চক্র। পরে মুরাদনগরের সকল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের কাছে ফোন করে টিআর, কাবিখা সংক্রান্ত বিভিন্ন বরাদ্দ-উপবরাদ্দ দেয়ার ভুয়া আশ্বাস দিয়ে অর্থ দাবি করে। তবে বিষয়টি নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের সন্দেহ হলে নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এরপর প্রতারণার বিষয়টি ধরা পড়ে।

তাৎক্ষণিকভাবে সংশ্লিষ্ট সবাইকে প্রতারণার বিষয়টি অবহিত করে ফাঁদে পা না দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন মুরাদনগরের ইউএনও। সবাইকে সতর্ক থাকার জন্য নিজের ফেসবুকেও একটি পোস্ট দিয়েছেন মিতু মরিয়ম। পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘আমার ইউএনও মুরাদনগর এর অফিশিয়াল ফোন নম্বরটি (০১৭৩৩৩৫৪৯৪৩) ক্লোন হয়েছে। নম্বরটি থেকে ফোন করে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের কথা বললে সেটি না করতে সকলকে অনুরোধ করা হলো।’

মিতু মরিয়ম জানান, আজ জেলা উন্নয়ন সমন্বয় সভার বৈঠকে থাকা অবস্থায় দুইজন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ফোন করে জানান তার অফিশিয়াল নম্বর থেকে তাদের কাছে ফোন করে টাকা চাওয়া হয়েছে।

মিতু বলেন, ‘বলা হয়েছে আমার মা অসুস্থ। তার চিকিৎসার জন্য টাকা দেয়ার জন্য। পরে তাদের সন্দেহ হলে আমাকে ফোন করলে বিষয়টি ধরা পরে।’

মিতু বলেন, ‘গত ১৯ জানুয়ারি আমি মুরাদনগরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেছি। জানতে পেরেছি যারাই এখানে নতুন আসেন তাদের ফোন ক্লোন করে একটি চক্র এমন প্রতারণা শুরু করে। আমিও যেহেতু নতুন এসেছি যে কারণে হয়তো এই চক্রটি প্রতারণা করার চেষ্টা করে।’

মুরাদনগরে ২২টি ইউনিয়ন পরিষদের বেশিরভাগ চেয়ারম্যানকে এভাবে ফোন করা হয়েছে বলে জানতে পেরেছেন মিতু। বলেন, ‘কিন্তু যেহেতু আমি নারী কর্মকর্তা তাই পুরুষ কণ্ঠে তাদের কাছে ফোন যাওয়ায় তাদের কাছে প্রতারণার বিষয়টি ধরা পড়ে।’

মিতু জানান, প্রতারণার প্রমাণ পেয়ে তিনি পুলিশের সঙ্গে কথা বলেছেন। এ বিষয়ে সাধারণ ডায়েরি করার প্রক্রিয়া চলছে। মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এস এম বদিউজ্জামান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘কিছুক্ষণ আগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমাকে বিষয়টি জানিয়েছেন। তাকে জিডি করার পরামর্শ দিয়েছি। পরে আমরা এ ব্যাপারে কাজ করব।’

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

২১ জানুয়ারি, ২০১৮ ২৩:৪৯:১৪