সেই পূর্ণিমাকে ব্যক্তিগত কর্মকর্তা বানালেন তারানা
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
ছবি তারানা হালিমের ফেইসবুক পেইজ থেকে নেয়া


২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াতের সহিংসতায় নির্যাতিত সিরাজগঞ্জের সেই পূর্ণিমা শীলকে ভালবাসা দিয়ে বুকে টেনে নিয়েছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। সেই দিনের চৌদ্দ বছরের কিশোরীকে আলোর পথ দেখিয়েছেন। নিয়োগ দিয়েছেন নিজের পার্সোনাল কর্মকর্তা হিসেবে। ভালবাসার মমতায় বুকে জড়িয়ে পূর্ণিমার সঙ্গে ছবি তুলে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী। বুধবার পূর্ণিমাকে ব্যক্তিগত কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। বিকালে নিজের ফেসবুক পেজে পোস্ট দিয়ে নিজেই একথা জানান। তার ফলোআররা এমন দরদি ও সাহসী কাজের জন্য প্রতিমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। খবর বাংলাদেশ জার্নাল'র।

ফেসবুকে প্রতিমন্ত্রী লেখেন, মনে পড়ে সেই পূর্ণিমাকে? ২০০১-এর ১ অক্টোবর নির্বাচন পরবর্তী বিএনপি-জামায়াতের পৈশাচিক নির্যাতনের শিকার হয়েছিলো ১৪ বছরের মেয়েটি। হ্যাঁ, আমি সিরাজগঞ্জের সেই পূর্ণিমা শীলের কথা বলছি। আজ আমি গর্বিত, আমি পূর্ণিমাকে আমার ‘পার্সোনাল অফিসার’ হিসাবে নিয়োগ দিলাম। পূর্ণিমা, তোমাকে আমরা ভুলে যাইনি। জীবনের অন্ধকার রূপ তুমি দেখেছো, আলোর জগতে তোমায় স্বাগতম... শুরু হোক নতুন পথচলা। তোমাকে অভিবাদন প্রিয় পূর্ণিমা।

২০০১ সালের ১০ অক্টোবর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট বিজয়ী হওয়ার পর দেশের বিভিন্ন স্থানে আক্রান্ত হয় হিন্দু সম্প্রদায়। এর মধ্যে ধর্ষণের শিকার হন স্কুলছাত্রী পূর্ণিমা। ধর্ষণকারীরা সবাই চারদলীয় জোটের সমর্থক হিসেবে পরিচিত।

 


১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৮:৫২:১৪