খালেদার আসনে পরিকল্পনা আ.লীগের
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
ফেনী-১ (পরশুরাম, ফুলগাজী, ছাগলনাইয়া) আসনটি বিএনপি অধ্যুষিত হিসেবেই পরিচিত। ১৯৯১, ’৯৬, ২০০১ ও ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া এই আসনে নির্বাচিত হয়ে এসেছেন। তবে ২০১৪ সালের দশম সংসদ নির্বাচন বিএনপি বর্জন করায় আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোটের শরিক জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শিরিন আখতার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।খব আমাদের সময়'র।

শিরিন আখতার বলেন, তিনি আবারও মহাজোট থেকে মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিলে এ আসন থেকে পুনরায় খালেদা জিয়ার প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে দাবি করেছেন পরশুরাম উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব। তিনি আরও জানান, খালেদা জিয়া প্রার্থী হবেন, তাই এ আসনে বিএনপির অন্য কোনো নেতার নাম সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় নেই।

অন্যদিকে এ আসনে অতীতের রেকর্ড ভাঙার ছক এঁকে জোরেশোরে মাঠে নেমে প্রচার চালাচ্ছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়ে নির্বাচনী এলাকায় অসংখ্য পোস্টার ব্যানার ও ফেস্টুন লাগিয়েছেন। এ ছাড়া গত অক্টোবর মাসে পরশুরাম উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন, পৌরসভা ও উপজেলা নির্বাচনী কমিটি ও প্রস্তুতিসভা সম্পন্ন করেছে দলটি। এদিকে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মাঠে আছেন একাধিক নেতা। বর্তমান সাংসদ শিরিন আখতারকে আগামীতে কোনো ছাড় দিতেও চান না তারা।

আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর সাবেক প্রটোকল অফিসার আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম, সাবেক মন্ত্রী লে. কর্নেল (অব) জাফর ইমাম বীরবিক্রম। জাফর ইমাম ২০০১ সালে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ছিলেন। এ ছাড়া ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খায়রুল বাশার মজুমদার তপন ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট মনোনয়ন চাইতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে।

খায়রুল বাশার মজুমদার তপন জানান, ফেনী-১ আসন থেকে তিনি গতবার দলীয় মনোনয়ন পেয়েছিলেন; তবে জোটের স্বার্থে তিনি নির্বাচন থেকে সরে যান। তিনি দাবি করেন, আলাউদ্দিন আহামেদ চৌধুরী নাসিম মনোনয়ন না চাইলে তিনি আওয়ামী লীগ থেকে পুনরায় দলীয় মনোনয়ন পাবেন।

ফুলগাজী নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, ফেনী-১ আসনে ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ১ লাখ ১৪ হাজার ৪শ ৮২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের প্রার্থী ফয়েজ আহাম্মদ পান ৫৮ হাজার ৫শ ২১ ভোট। এ ছাড়াও খালেদা জিয়া এ আসনে ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে নির্বাচিত হন। এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন ১৯৯১ সালে জাকারিয়া ভুইয়া, ১৯৯৬ সালে ওয়াজিউল্লাহ ভুইয়া, ২০০১ ও ২০০৮ সালে ফয়েজ আহাম্মদ।

ফুলগাজী উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সাহেদা আক্তার জানান, ফেনী-১ আসনে (পরশুরাম, ফুলগাজী, ছাগলনাইয়া) মোট ভোটার ২ লাখ ৯৭ হাজার ৪শ ৭ জন।

 

১৪ নভেম্বর, ২০১৭ ১২:১২:২৯