শামসুন্নাহারকে হত্যা করেত ১০০ টাকায় চাকু কেনে জনি
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট


ব্যবসায়ী আব্দুল করিমের প্রথম স্ত্রী শামসুন্নাহার(৪৬) ও ছেলে সাজ্জাদুল করিম শাওনকে(১৮) হত্যা করার কথা স্বীকার করলেন তৃতীয় স্ত্রী পারভীন আক্তার মুক্তার ভাই আল আমিন জনি। শনিবার বিকেলে র‌্যাবের এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানানো হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে জনির বরাত দিয়ে র‌্যাবের মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান জানান, ঢাকার নিউ মার্কেট থেকে ১০০ টাকায় একটি চাকু কেনার পর শামসুন্নাহারের কাকরাইলের বাসায় যান জনি। তিনি কলিংবেল চাপলে কাজের বুয়া দরজা খুলে দিয়ে রান্নাঘরে চলে যান। তখন তিনি রান্নাঘরের দরজা লাগিয়ে দিয়ে প্রথমে চাকু দিয়ে শাওনকে আঘাত করেন এবং তাকে চুপচাপ বসে থাকতে নির্দেশ দেন। এরপর তিনি শামসুন্নাহারের ঘরে গিয়ে তাকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করেন। শাওন উঠে গিয়ে তার মাকে বাঁচানোর চেষ্টা চালালে তাকে আবার আঘাত করেন তিনি।

তিনি জানান, করিমের অধিকাংশ সম্পত্তি প্রথম স্ত্রী শামসুন্নাহারের নামে হওয়ায় তা নিয়ে মুক্তার অসন্তোষ ছিল। এসব নিয়ে মুক্তার সঙ্গে দ্বন্দ্ব শামসুন্নাহারের। প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে এই দ্বন্দ্বের কারণে প্রায় চার মাস আগে মুক্তাকে ডিভোর্সের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন করিম।

র‌্যাবের এই মুখপাত্র আরো জানান, এই বিরোধের জেরেই হত্যাকাণ্ডের চারদিন আগে মুক্তা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। ওই সময় মুক্তার বাসায় স্বামী করিম ও তার ভাই ছিল। তাদের চেষ্টার করণে তিনি আত্মহত্যা করতে পারেনি। এরপরই শামসুন্নাহারকে হত্যার পরিকল্পনা করেন জনি।

শামসুন্নাহারের ভাইয়ের করা মামলায় গত বুধবার হত্যাকাণ্ডের দিন করিমকে এবং পরের দিন মুক্তাকে আটক করে পুলিশ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের পর শনিবার ভোররাতে গোপালগঞ্জ থেকে জনিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

 


০৪ নভেম্বর, ২০১৭ ২০:৫৬:৩৩