বাড্ডায় বাবা-মেয়ে খুনের নেপথ্যে পরকীয়া
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট
পরকীয়া প্রেমের জের ধরে রাজধানীর উত্তর বাড্ডায় বাবা জামিল শেখ ও মেয়ে নুসরাত নৃশংসভাবে খুন হন বলে জানিয়েছেন তদন্তসংশ্লিষ্টরা। পুলিশ বলছে, জামিলের স্ত্রী আরজিনা বেগম এবং ওই বাড়ির সাবলেট ভাড়াটিয়া শাহিন মল্লিকের মধ্যে কিছু দিন ধরে চলছিল পরকীয়ার সম্পর্ক। জামিল-আরজিনা দম্পতি ও শাহিন আগে একই ভবনে ভাড়া থাকতেন। চার মাস আগে জামিল বাসা পাল্টে উত্তর বাড্ডার ময়নারবাগে এলেও পরকীয়ার টানে আরজিনা কৌশলে এ ভবনেও শাহিনকে সাবলেট ভাড়াটিয়া হিসেবে এনেছিলেন। অতঃপর পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে হাত মিলিয়ে নিজের সন্তান ও স্বামীকে খুনের মতো ঘটনা ঘটিয়েছেন। পরকীয়া সম্পর্কের জের ধরেই এ নৃশংস খুনের ঘটনা ঘটেছে বলে মনে করছেন তদন্তসংশ্লিষ্টরা।

এ ঘটনায় শুক্রবার ভোরে খুলনা মহানগরীর মোহাম্মদনগর এলাকা থেকে আরজিনার পরকীয়া প্রেমিক শাহিন ও তার স্ত্রী মাসুমা খানমকে গ্রেফতার করেছে ঢাকার বাড্ডা থানা পুলিশ। এ ব্যাপারে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন জানানো হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে জামিল ও তার মেয়ের লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ আরজিনাকে গ্রেফতার করে।  

অন্যদিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জামিল ও তার শিশুকন্যা নুসরাতের লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক বলেছেন, ভারি কিছু দিয়ে মাথায় আঘাত করে জামিলকে হত্যা করা হয়। আর নুসরাতকে হত্যা করা হয় শ্বাসরোধে। জামিল ও নুসরাতের লাশ গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় গ্রামের বাড়িতে শুক্রবার দাফন করা হয়।

বাড্ডা থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী আলোকিত বাংলাদেশকে বলেন, জামিল ও নুসরাত হত্যাকা-ের পর থেকেই আরজিনা অসংলগ্ন কথা বলছেন। পুলিশ ও স্থানীয়রা আরজিনার কথায় গরমিল পেয়ে তাকে সন্দেহ করে। পরে স্বজনরা আরজিনার পরকীয়া প্রেম রয়েছে বলে অভিযোগ করেন। সে সূত্র ধরে প্রাথমিক তদন্তে পুলিশও এমনটিই ধারণা করছে। ওসি জানান, জামিলের কপালে একটি ও মাথায় পাঁচটি জখমের চিহ্ন ছিল। ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাতের ফলে ওই জখম হয়ে থাকতে পারে। লাশের পাশে একটি কাঠের টুকরো পাওয়া গেছে; যা আঘাত করতে ব্যবহার করা হয়ে থাকতে পারে।

তদন্তসংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা বলেন, জামিলের ভাই শেখ শামীম হোসেন বাদী হয়ে আরজিনা ও শাহিনকে আসামি করে বাড্ডা থানায় ৩০২/৩৪ ধারায় মামলা করেন। এরপর শুক্রবার সকালে খুলনা থেকে শাহিন ও তার স্ত্রী মাসুমাকে গ্রেফতার করা হয়। ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, প্রাথমিক তদন্তে আরজিনার কাছ থেকে তাদের পরকীয়া প্রেমের সম্পর্কের কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। কিছু দিন ধরেই আরজিনা ও শাহিনের মধ্যে এ অনৈতিক সম্পর্ক চলছিল। মূলত এ সম্পর্কের কারণেই জামিল ও আরজিনার মধ্যে দাম্পত্য কলহ বিরাজ করছিল বলে জানা গেছে। সে কলহের জের ধরে কিছু দিন আগে একবার আরজিনা ঝগড়া করে তার বাবার বাড়ি চলে গিয়েছিলেন। ছোট ছোট সন্তানদের কথা ভেবে জামিল আবারও তাকে ফিরিয়ে এনেছিলেন। ঢাকা মহানগর পুলিশের বাড্ডা জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (এসি) আশরাফুল কবির বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে আরজিনার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মোবাইল ফোন ট্র্যাক করে শুক্রবার ভোরে খুলনা থেকে শাহিন ও তার স্ত্রী মাসুমাকে গ্রেফতার করা হয়। 

 

০৪ নভেম্বর, ২০১৭ ১০:১৮:২০