মিয়ানমারে তিন হাজার রোহিঙ্গা নিহত, ক্যাম্পে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
অ+ অ-প্রিন্ট
রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বাংলাদেশমুখী যাত্রা
রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিয়ে চাপে আছে বাংলাদেশ সরকার৷ বিভিন্ন সংগঠন তাদের নিয়ে সরকারের কূটনৈতিক তৎপরতায় অষন্তোষ প্রকাশ করেছে৷ এই প্রেক্ষাপটে ১২ সেপ্টেম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে রবিবার ভ্যাটিকানের রাষ্ট্রদূত জর্জ কোচেরি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছেন যে, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর হাতে ২৫ আগস্ট থেকে এ পর্যন্ত তিন হাজার রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে৷ বিকেলে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর জর্জ কোচেরি বলেন, ‘‘পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমাদের জানিয়েছেন, এই সহিংসতায় মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর হাতে তিন হাজারের মতো রোহিঙ্গা মারা গেছেন৷ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় রোহিঙ্গাদের সহায়তা দেওয়ার জন্য চেষ্টা করছেন৷''

অন্যদিকে, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন, বাংলাদেশে এখন রোহিঙ্গা শরণার্থীর সংখ্যা সাত লাখেরও বেশি৷ ২৫ আগস্ট থেকে এখন অবধি রাখাইন থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থী এসেছে তিন লাখ বলেও নিশ্চিত করেছেন তিনি৷ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘‘বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গা শরণার্থীদের তালিকাভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে কক্সবাজার ও সংলগ্ন জেলাগুলোকে কাজ শুরুর নির্দেশ দেয়া হয়েছে৷ তারা রোহিঙ্গাদের নাম, ঠিকানা, ছবি এবং সম্ভব হলে হাতের ছাপ নেবেন৷ আর সব রোহিঙ্গা শরণার্থীদের এক জায়গা রাখার জন্য কক্সবাজারের মধ্যেই আপাতত দুই হাজার একর জমি খোঁজা হচ্ছে৷''

এদিকে, সরকারের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে যে, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টির পাশাপাশি বাংলাদেশে যাতে রোহিঙ্গাদের খাবার, আশ্রয় নিয়ে প্রশ্ন না ওঠে সরকার সেদিকে নজর রাখছে৷ বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি মনিটর ও নিয়ন্ত্রণের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ‘রোহিঙ্গা সেল' গঠন করেছে৷

বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রধান বিরোধী রাজনৈতিক দল বিএনপি ও জামায়াতসহ আরো অনেক রাজনৈতিক দল রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে সরকারের ওপর চাপ দিচ্ছে৷ তারা দাবি করছে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশ সরকারের কূটনৈতিক প্রচেষ্টা ‘ব্যর্থ' হয়েছে৷ গণজাগরণ মঞ্চ সোমবার বিকেলে ঢাকায় মিয়ারমার দূতাবাস ঘোরওয়ের ঘোষণা দিয়েছে৷ আর হেফাজতে ইসলাম ঘোরাও করবে ১৯ সেপ্টেম্বর৷ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ছাড়াও সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন প্রতিদিনই ঢাকায় বিক্ষোভ করছে৷ ধারণা করা হচ্ছে আগামী শুক্রবার জুমার নামাজের পর ঢাকাসহ সারাদেশে বড় আকারের বিক্ষোভ হতে পারে৷

প্রসঙ্গত, ২৫ আগস্টের পর মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে নির্যাতনের মুখে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসা শুরু করলে প্রথমে সীমান্ত সিল করা দেয়া হয়েছিল৷ কিন্তু কয়েকদিন পরই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের প্রতি মানবিক আচরনের নির্দেশ দিলে সীমান্ত শিথিল হয় এবং ব্যাপকহারে নির্যাতিত রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসতে শুরু করে৷ আন্তর্জাতিক চাপের মুখেই বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিচ্ছে৷ তবে বাংলাদেশ কফি আনান কমিশনের প্রতিবেদন অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের নিজ দেশ মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে কূটনৈতিক প্রচেষ্টাও অব্যাহত রেখেছে৷ তারই অংশ হিসেবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সোমবার পশ্চিমা দেশগুলোর রাষ্টদূতদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন৷

বাংলাদেশে এখন সব মিলিয়ে রোহিঙ্গা শরণার্থীর সংখ্য কমপক্ষে সাত লাখ৷ এরমধ্যে নিবন্ধিত মাত্র ৩০ হাজার৷ কূটনীতিক এবং সাবেক রাষ্ট্রদূত হুমাযূন কবির ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘রোহিঙ্গা নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের এখন প্রধান কাজ তিনটি৷ প্রথমত, নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় এবং খাদ্যের ব্যবস্থা করা৷ দ্বিতীয়ত, শরণার্থী ক্যাম্প এবং সংলগ্ন এলাকার আইন শৃঙ্খলা নিশ্চিত এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের তালিকাভুক্ত করা৷ তৃতীয়ত, রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টি করা৷''

তিনি বলেন, ‘‘রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টি এবং কফি আনান কমিশনের রিপোর্ট বাস্তবায়ন করতে হলে বাংলাদেশকে বড় ধরনের কূটনৈতিক তৎপরতা চালাতে হবে৷ শুধু ঢাকায় বসে হবে না৷ বন্ধু রাষ্ট্রগুলোতে বিশেষ দূত পাঠাতে হবে৷ ওইসব দেশকে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি দেখতে বাংলাদেশে আমন্ত্রণ জানাতে হবে৷''

 

 

 

 

 

 

 

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৩:০০:৫৪