বিচারপতি খায়রুল হকের বক্তব্যকে ধিক্কার জানাই: ফখরুল
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর
ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে সাবেক প্রধান বিচারপতি ও আইন কমিশনের চেয়ারম্যান এ বি এম খায়রুল হকের দেয়া বক্তব্যকে ধিক্কার জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, তিনি (খায়রুল হক) কৃতকর্মের জন্য কোন শোচনা তো করেননি বরং একটি অন্যায়ের পক্ষে সাফাই গেয়েছেন। ষোড়শ সংশোধনীর রায়ের পর আওয়ামী লীগের নেতারা হতাশ হয়েছেন। সংক্ষুদ্ধ হয়েছেন। তাতো হবেনই। তাদের সৃষ্ট দানব যে তাদেরকেই গ্রাস করতে চলছে তা এখনও তারা বুঝতে পারছেন না। সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগকে আর একবার ধন্যবাদ জানাই এই জন্য যে তাঁরা তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন। সীমাহীন  দুর্নীতি, দ্রুত দুঃশাসন, স্বজনপ্রীতি, ক্ষমতার অহংকার আজ স্বাধীনতা যুদ্ধের সকল স্বপ্ন ও অর্জনগুলিকে ভেঙ্গে চুরে চুরমার করে দিচ্ছে। এই দুঃসময়ে সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের এই রায় সুশাসনের জন্য, ন্যায়বিচারের জন্য, গণতন্ত্রের জন্য, মানবাধিকারের জন্য, নিঃসন্দেহে আশার আলো।

খায়রুল হকের দেয়া বক্তব্যকে আদালত অবমাননার সামিল বলে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, এই রায়ের ফলে তাঁর গাত্রদাহ শুরু হয়েছে। আইন কমিশনের আসনে বসে সুপ্রীম কোর্টের রায় সম্পর্কে মাননীয় প্রধান বিচারপতি সম্পর্কে তিনি যেসব উক্তি করেছেন তা শুধু অশালীনই নয়, তা রীতিমত আদালত অবমাননার সামিল। গতকাল রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে সাবেক প্রধান বিচারপতি খায়রুল হক এবং আইনমন্ত্রীর দেয়া বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, সরকার বা সরকারী দল আওয়ামী লীগ কোনও আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া দেওয়ার পূর্বেই সাবেক প্রধান বিচারপতি বর্তমান আইন কমিশন চেয়ারম্যান বিচারপতি খায়রুল হক রায়ের বিরুদ্ধে বিষোদগার করলেন। বিচারপতি খায়রুল হক তাঁর সময় যেসব রায় দিয়েছেন তা বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে কতখানি ক্ষতিগ্রস্ত করেছে তা দেশের মানুষ এখন হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে। ৫ম, ৭ম ও ১৩তম সংশোধনী বাতিলের ফলে আজ দেশে যে সাংবিধানিক, রাজনৈতিক সংকট সৃষ্টি হয়েছে তা দেশের গণতন্ত্রকে পুরোপুরি ভঙ্গুর করে ফেলেছে। মির্জা আলমগীর বলেন, বিচারপতি খায়রুল হকের বক্তব্য আওয়ামী লীগের নেতা ও মন্ত্রীদের বক্তব্যের মধ্যে কোনও অমিল নেই। একই সুরে বাধা। বিচারপতি খায়রুল হকের রায়ের পরেই বাংলাদেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা, অস্থীতিশিলতা এবং হতাশা বেড়েছে। 

১১ আগস্ট, ২০১৭ ০০:৩২:৪৪