ভাস্কর্য অপসারণ না হলে সুপ্রিম কোর্ট ঘেরাও
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
গ্রিক দেবীর ভাস্কর্য অপসারণের দাবিতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের জনসমাবেশ
দেশের সর্বোচ্চ আদালতের সামনে থাকা গ্রিক দেবীর ভাস্কর্য অপসারণ এবং প্রধান বিচারপতির অপসারণ চেয়েছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। তা না হলে রমজানে দেশজুড়ে বিক্ষোভ ও ঈদুল ফিতরের পর সুপ্রিম কোর্ট ঘেরাও করার হুঁশিয়ারি দিয়েছে ইসলামী সংগঠনটি।

শুক্রবার বিকালে এক সমাবেশে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির ও চরমোনাই পীর সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম এ হুঁশিয়ারি দেন। রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর গেটে এ সমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়।

তিনি বলেন, রমজান মাসের আগে মূর্তি অপসারণ করা না কলে ১৭ রমজান জেলায় জেলায় বিক্ষোভ, তারপরও মূর্তি সরানো না হলে রমজানের পর এই দাবিতে সুপ্রিম কোর্ট ঘেরাও করা হবে।

তিনি আরো বলেন, দেশের শীর্ষ আলেমদের সামনে প্রধানমন্ত্রী ওয়াদা করেছিলেন, সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে মূর্তি অপসারণের উদ্যোগ নেবেন। কিন্তু মূর্তিপ্রেমী ইসলামবিদ্বেষী একটি মহল উস্কানিমূলক কথাবার্তা বলে পানি ঘোলা করার চেষ্টা করছে।

চরমোনাই পীর বলেন, ইনু, মেনন, মাইনুদ্দীন খান বাদলরা জাতীয় সংসদের সদস্য হওয়াটা দেশবাসীর জন্য লজ্জার বিষয়। আমরা আশা করবো- আগামীতে এ জাতীয় ইসলামবিদ্বেষী ও বিতর্কিত লোকদের কাছে আওয়ামী লীগ তাদের নৌকা ভাড়া দেবে না।

প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার অপসরণের দাবিতে রেজাউল করিম বলেন, মূর্তিভক্ত প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা সুপ্রিম কোর্টের সামনে এবং জাতীয় ঈদগাহের পাশে মূর্তি স্থাপনের সিদ্ধান্ত দিয়ে দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়েছেন। তিনি সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন। গণমানুষের আস্থা এবং নিরপেক্ষতা হারিয়েছেন। এ বিতর্কিত ও অবিবেচক ব্যক্তি প্রধান বিচারপতির আসনে থাকতে পারেন না। আমরা তার দ্রুত অপসারণ চাই।

চরমোনাই পীর বলেন, গ্রিক দেবীর মূর্তি স্থাপন করে দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম নাগরিকদের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়া হয়েছে। এদেশের হিন্দু সম্প্রদায় মূর্তি পূজা করে। কিন্তু কোনো হিন্দু গ্রিক দেবীর পূজা করে না।

২১ এপ্রিল, ২০১৭ ২৩:৫৫:৩৬